বাঁধভাঙা উল্লাসে মাতল চাঁপাইনবাবগঞ্জ  জেলাবাসী

27

স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে শনিবার বাঁধভাঙা উল্লাসে মেতে উঠেছিল চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলাবাসী। সকাল সাড়ে ৭টা থেকে সরকারি-বেসরকারি দপ্তর, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও এনজিওগুলো তাদের জনবল নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে জেলা প্রশাসন আয়োজিত কর্মসূচিতে অংশ নিতে সমবেত হয়। গোটা আম্রকানন লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়।
পরে সকাল ৮টায় সেখান থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শুরু হয়। শোভাযাত্রাটি সার্কিট হাউজ মোড় দিয়ে মহাসড়ক ধরে শান্তি মোড়-বাতেন খাঁর মোড় ঘুরে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের সামনে দিয়ে পুরাতন স্টেডিয়ামে শেষ হয়।
রংবেরংয়ের ব্যানার, ফেস্টুন, প্লাকার্ড হাতে নিয়ে মাথায় ক্যাপ ও পদ্মা সেতু-খচিত টিশার্ট গায়ে সরকারি কর্মকর্তা, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, এনজিও কর্মকর্তা-কর্মীগণ শোভা যাত্রায় অংশ নেন। অংশ নেন জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধারাও। শোভাযাত্রায় ট্রাক শো ছিল দৃষ্টি কাড়ার মতো। ছিলেন বাদক দলেন সদস্য, স্কাউট সদস্যরা। নিরাপত্তায় নিয়োজিত ছিলেন জেলা পুলিশের বিপুলসংখ্যক সদস্য।
কর্মসূচিতে জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খান, পুলিশ সুপার এএইচএম আবদুর রকিব, সিভিল সার্জন ডা. এস এম মাহমুদুর রশিদ, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মু. জিয়াউর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন ও আব্দুস সামাদ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জাকিউল ইসলাম ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজম্ব) আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান, প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক হাসিব হোসেনসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করেন।


পুরাতন স্টেডিয়ামে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খান, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাবেক এমপি জিয়াউর রহমান, পুলিশ সুপার এএইচএম আবদুর রকিব বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আব্দুস সামাদ।
আলোচনার মাঝে মাঝে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দেশের গান পরিবেশন করা হয়।
জেলা প্রশাসক বলেন, পদ্মা সেতু নির্মাণ আমাদের জন্য একটি বড় বিজয়। প্রধানমন্ত্রীকে এই জন্য ধন্যবাদ জানাতে চাই। খরস্রোতা এই পদ্মায় শত শত মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই সেতু আমাদের দেশের দারিদ্র্য বিমোচন, প্রবৃদ্ধি অর্জন এবং ব্যবসা-বাণিজ্যে আন্তর্জাতিকতায় সাফল্য বয়ে আনবে। তিনি বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তুলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলব।
এদিকে জেলা প্রশাসন আয়োজিত তিন দিনের কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিকেলে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। ‘পদ্মা সেতু : বাংলাদেশের সক্ষমতার প্রতীক’ শীর্ষক সেমিনারে আলোচকদের আলোচনায় উঠে আসে পদ্মা সেতুসহ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের গুণাবলি।