বাঁচার আকুতি ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী সামিয়ার

67

চাঁপাইনবাবগঞ্জের অন্যতম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নবাবগঞ্জ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছোট্ট সামিয়া। লেখাপড়া করে বড় ডাক্তার হয়ে পরিবারের মুখ উজ্জ্বল করবে এমন স্বপ্ন নিয়ে বেশ ভালোই কাটছিল সামিয়ার জীবন। মাস ছয়েক আগে তার ক্যান্সারের কথা জানতে পারে পরিবার। ঠাঁই হয় হাসপাতালের বিছানায়।
৫ম শ্রেণিতে কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হয়ে এ বছরই ভর্তি হয় সামিয়া। ভর্তির পর অনেক স্বপ্ন নিয়েই উচ্চ বিদ্যালয়ের গ-িতে পথচলা শুরু হয়। কিন্তু কিছুদিন যেতেই সে স্বপ্ন ফিকে হয়ে আসে আসে। সামিয়ার বোন ক্যান্সার ধরা পড়ে।
সাামিয়া আক্তার চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার বেলেপুকুর এলাকার মো. তোফিকুল ইসলাম ও সেলিনা বেগমের ছোট সন্তান। মরণ ব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে কলার বোনের নিচের হাড় ভেঙে যায় তার। রাজশাহী ও ঢাকায় চিকিৎসা করে সাময়িক পরিত্রাণ পেলেও ক্রমাগত হাত, পা ফুলে যাওয়ায় দুশ্চিন্তায় পরিবার। উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মহাখালীর জাতীয় ক্যান্সার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেও দিনে দিনে অবস্থার অবনতি হলে সামিয়ার মা সকল স্বর্ণের গয়না বিক্রি করে এবং আত্মীয় স্বজনের কাছে ধারদেনা করে গত ৭ মার্চ ভারতের ব্যাঙ্গালোরে মজুমদার ক্যান্সার হাসপাতালে ভর্তি করেন। এখন পর্যন্ত সেখানেই চিকিৎসা চলছে তার। তবে অর্থাভাবে সেখানকার চিকিৎসাও বন্ধ হওয়ার পথে।
সামিয়ার বড় বোন নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের ছাত্রী আজিজা খাতুন জানান, সামিয়া খুব মেধাবী এবং চঞ্চল প্রকৃতির। ব্যাঙ্গালোরে মজুমদার ক্যান্সার হাসপাতালের চিকিৎসক জানিয়েছেন সামিয়াকে প্রায় ৮ মাস হাসপাতালে ভর্তি থেকে চিকিৎসা নিতে হবে। এতে আনুমানিক ব্যয় হবে ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা। ‘অর্থের অভাবে বোনের চিকিৎসা হবে না’ বলেই মুঠোফোনে কান্নায় ভেঙে পড়েন বোন আজিজা।
স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. ফজলুর রহমান জানান, সামিয়া খুব মেধাবী ছাত্রী। তবে চলতি বছর ক্লাসে অনুপস্থিত থাকত। তিনি আরো বলেন, সামিয়ার মরণব্যাধি ক্যান্সারের চিকিৎসা চালিয়ে নিতে অসহায় পরিবারটি নিঃস্ব হওয়ার পথে। আমরা প্রতিষ্ঠান থেকে যৎসামান্য সহায়তা করেছি।
প্রতিবেশী চাচা আপেল মাহমুদ জানান, সামিয়াদের পরিবারটি আজ নিদারুণ কষ্ট ভোগ করছে। তার পরিবার নিরুপায় হয়ে শিশুটির প্রাণরক্ষার জন্য সহযোগিতা চেয়েছেন। আমরা সবাই যদি ১০০ টাকা করেও দিই তাহলে ২৫-৩০ লাখ টাকা জোগাড় হতে বেশি সময় লাগার কথা নয়। সবার কাছে অনুরোধ, আপনাদের সামান্য অংশগ্রহণে বেঁচে যেতে পারে একটি শিশুর জীবন।
শিশু সামিয়াকে সহযোগিতা করতে চায়লে বিকাশ করা যাবে ০১৭৯৭৭২১৪০৮ নম্বরে। এছাড়া অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড, খামার শাখা, অ্যাকাউন্ট নং- ০২০০০১৬২৭০৭৫৩, চাঁপাইনবাবগঞ্জÑ এখানেও অর্থ সহায়তা পাঠানো যাবে।