বন্যা কবলিত শ্রীলংকার রাজধানীতে বিদেশী ত্রাণ পৌঁছানো শুরু, ৭১ জনের মৃত্যু

41

gourbangla logoশ্রীলংকায় গতকাল শনিবার বিদেশী ত্রাণ পৌঁছানো শুরু করেছে। প্রবল বর্ষণের ফলে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমিধসের কারণে গৃহহীন হয়ে পড়া প্রায় পাঁচ লাখ লোকের সহায়তায় এসব ত্রাণ পাঠানো হচ্ছে। বন্যায় ঘরবাড়ি ভেসে যাওয়ায় ও ভূমিধসে অনেক ঘরবাড়ি মাটির নীচে চাপা পড়ায় এসব লোক গৃহহীন হয়ে পড়ে। এতে কমপক্ষে ৭১ জনের প্রাণহানি ঘটে। এদিকে রাজধানী থেকে বন্যার পানি আস্তে আস্তে কমতে শুরু করেছে। কর্মকর্তারা একথা জানান। গত সপ্তাহ থেকে শ্রীলংকায় বিগত ২৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশী বৃষ্টিপাত হয়। এতে দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিধসের ঘটনা ঘটে। এসব ভূমিধসের ঘটনায় অনেকে সর্বোচ্চ প্রায় ৫০ ফুট মাটির নীচে চাপা পড়ে। দেশটিতে বন্যা ও ভূমিধসের ঘটনায় এখন পর্যন্ত আরো ১২৭ জন নিখোঁজ রয়েছে।
শ্রীলংকার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, জরুরী ত্রাণসামগ্রী বহন করা ভারতীয় একটি বিমান কলম্বোতে পৌঁছেছে। এছাড়াও ভারতের নৌবাহিনীর দু’টি জাহাজও খুব শিগগিরই রাজধানীর বন্দরে রাজধানীর বন্দরে পৌঁছাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এদিকে জাপানের একটি ভাড়া করা বিমান ত্রাণসামগ্রী নিয়ে শ্রীলংকায় পৌঁছেছে। অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র শ্রীলংকার বন্যা দুর্গতদের সাহায্যে নগদ অর্থ প্রদানের ঘোষণা দিয়েছে। দুর্যোগ বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে বন্যার পানি সরে যেতে শুরু করেছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কেন্দ্রের মুখপাত্র প্রদীপ কোদিপ্পিলি এএফপিকে বলেন, ‘কলম্বোতে গত রাতে তেমন কোন বৃষ্টিপাত হয়নি এবং কেলানি নদীর পানির স্তর সামান্য নিচে মেনে গেছে।’ কলম্বোতে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় এখন পর্যন্ত ৭১ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে এবং এখনো আরো অনেকে নিখোঁজ থাকায় এতে মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে গতকাল শনিবার শ্রীলংকায় সরকারি ছুটির দিন হওয়া সত্ত্বেও এদিন প্রায় তিন লাখ লোক সরকারি প্রায় ৫শ’ আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান করছে। প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা বন্যা দুর্গতদের আশ্রয় দিতে এবং নগদ অর্থ ও খাদ্য সাহায্য দিতে শ্রীলংকার নাগরিকদের প্রতি আহবান জানান। তিনি বিদেশি সাহায্যও চেয়েছেন। তার এই ডাকে সাড়া দিয়ে ইতোমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ত্রাণ পাঠানো শুরু করেছে।