বদলে যাওয়া ভিন্ন এক কনা

108

04সেই ছোটবেলা থেকেই গানের সঙ্গে সখ্যা শুরু জনপ্রিয় শিল্পী দিলশাদ নাহার কনার। সে সময় থেকেই বুঝে, শুনে শিখার চেষ্টা। সেই চেষ্টার ফলেই একটা সময় পেশাগতভাবে গানের জগতে যাত্রা শুরু তার। ‘জ্যামিতিক ভালোবাসা’ গানটি দিয়ে সর্বপ্রথম আলোচনায় আসেন তিনি। এরপর বহু গান গেয়ে গেছেন। অ্যালবামতো বটেই, চলচ্চিত্রের গানে তার ব্যস্ততা ক্রমশ কেবল বেড়েছেই। বর্তমানে চলচ্চিত্র, অ্যালবাম, জিঙ্গেল, ভয়েস ওভার, স্টেজ শো এই প্রতিটি ক্ষেত্রেই নারী শিল্পীদের মধ্যে সর্বাধিক ব্যস্ত কনা। প্রায় প্রতিদিনই নতুন কোনো প্লেব্যাক কিংবা জিঙ্গেল গাইছেন তিনি। তবে চলতি বছর এসে ভিন্ন ও বদলে যাওয়া কনাকেই যেন আবিষ্কার করা গেছে। অ্যালবাম ও প্লেব্যাক মিলিয়ে চলতি বছর রেকর্ডসংখ্যক গান করেন তিনি। পাশাপাশি স্টেজ শো-এর ব্যস্ততা তো ছিলই। এর মধ্যে চার বছর পর গেলো রোজার ঈদে একসঙ্গে প্রকাশ হয় কনার দুটি একক অ্যালবাম। এর মধ্যে সিএমভি প্রকাশ করে কনার ‘সিম্পলি কনা’। এর বাইরে ডিজিটালি প্রকাশ পায় তার আরো একটি একক অ্যালবাম ‘সেলফি’। এই দুই অ্যালবামের বাইরে বছরের শুরুতে ‘রেশমি চুড়ি’ গানটি প্রকাশ করে শ্রোতামহলে ব্যাপক আলোচনায় আসেন কনা। শুধু অডিওই নয়, এর ভিডিওতে একেবারে নায়িকা বেশে নেচে-গেয়ে পারফর্ম করেছেন এ শিল্পী। তার এই পারফরম্যান্স প্রাণভরে উপভোগ করেন দর্শক। অন্যদিকে অ্যালবামের পাশাপাশি শওকত আলী ইমন, ইমন সাহা, আলী আকরাম শুভদের সুর ও সংগীতে বেশ কিছু ছবিতে গান গেয়েছেন কনা। আর জিঙ্গেল ও ভয়েস ওভারের কাজও করেছেন নিয়মিত। এ বিষয়ে কনা বলেন, আসলে এ বছর স্টেজ, অ্যালবাম, প্লেব্যাক, জিঙ্গেল ও ভয়েস ওভারের কাজ অনেক করা হয়েছে। আর এ কারণেই বোধহয় শ্রোতাদের চোখেও পড়েছে বেশি। আমি চেষ্টা করেছি আমার স্টাইল ও মান বজায় রেখে কাজ করার। এই চেষ্টাটা আমার সব সময়ই থাকে। সামনেও নিজেকে একইভাবে পরিচালিত করতে চাই।