ফ্র্যাঞ্চাইজিদের এবারের বিপিএলে আগ্রহ নেই!

6

শুরুতে প্রশ্ন ছিল, সামনের বিপিএল হবে তো? আর এখন আলোচনায়, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) নতুন পরিকল্পনায় ‘টিম স্পন্সর’ হিসেবে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো থাকছে কিনা। যদিও বাংলা ট্রিবিউন জানতে পেরেছে, ছয় ফ্র্যাঞ্চাইজির কেউই বিসিসির কাছে ইওই (এক্সপ্রেশন অব ইন্টারেস্ট) জমা দেয়নি। গতবারের বিপিএলের দলগুলোর মধ্যে চিটাগং ভাইকিংস যে থাকছে না, সেটা নিশ্চিত হয়েছে আগেই। বাকি ছয় ফ্র্যাঞ্চাইজি নতুন আসরের প্রস্তুতি নিলেও তাদের বাদ দিয়ে নিজেরাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘বিশেষ’ বিপিএল আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয় বিসিবি। তবে ‘টিম স্পন্সর’ হিসেবে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর থাকার পথ রেখেছিল তারা। কিন্তু তাদের সেই ডাকে সাড়া দেয়নি ছয় ফ্র্যাঞ্চাইজির কেউই। বিপিএলের নতুন নিয়মের বিরোধিতা করার সঙ্গে প্রায় সব ফ্র্যাঞ্চাইজি লভ্যাংশের ভাগ দাবি করেছিল বিসিবির কাছে। এ নিয়ে আলাদা করে বিপিএল গর্ভনিং কাউন্সিলের সঙ্গে আলোচনায় বসে মালিকপক্ষরা। কিন্তু হঠাৎই বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান ঘোষণা দেন, সামনের বিপিএলে কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজি থাকছে না, বঙ্গবন্ধুর নামে বিপিএল আয়োজন করবে তারাই। ফ্র্যাঞ্চাইজি ‘বিল্প্তু’ করলেও স্পন্সর হওয়ার সুযোগ রেখেছিল বিসিবি। বোর্ডের ব্যবস্থাপনায় হতে যাওয়া বিপিএলে আগ্রহী স্পন্সরদের ইওই জমা দেওয়া আহ্বান করেছিল বাংলাদেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা। ১৭ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ছিল জমা দেওয়ার সময়। বাংলা ট্রিবিউন জানতে পেরেছে, এই সময়ের মধ্যে আগের কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজি আগ্রহ দেখায়নি। যদিও ডিসেম্বরে হতে যাওয়া এবারের প্রতিযোগিতায় ‘আগ্রহপত্র’ জমা দেওয়া প্রতিষ্ঠান বা মালিকের চূড়ান্ত তালিকা এখনও প্রকাশ করেনি বিসিবি। তবে সংস্থাটির বেশ কয়েকটি সূত্র থেকে জানা গেছে, চার থেকে পাঁচটি ইওই জমা পড়েছে। যাদের মধ্যে আখতার গ্রুপ ও টাইগার আইটির ক্রিকেট পাড়ার সঙ্গে যোগাযোগ আছে আগে থেকে। অবশ্য এই ব্যাপারেও এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানায়নি বিসিবি।