প্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিষ্ঠান লিনাক্স-এর সঙ্গে মাইক্রোসফট

72

02প্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিষ্ঠান লিনাক্স-এর সঙ্গে অংশীদারিত্ব করছে মাইক্রোসফট। শত্রুতা ভুলে লিনাক্স-এর জন্য এবার বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়েছে মার্কিন সফটওয়্যার জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটি। লিনাক্স ফাউন্ডেশনকে আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে মাইক্রোসফট। এর আগে লিনাক্স প্লাটফর্মকে ‘ক্যান্সার’ আখ্যা দিয়েছিলেন মাইক্রোসফটের এক কর্মকর্তা। এবার ‘সেই ক্যান্সারেই’ পাঁচ লাখ ডলার খরচ করছে প্রতিষ্ঠানটি, জানিয়েছে বিবিসি। ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান এবং ডেভেলাপারদের কাছে ওপেন সোর্স লিনাক্স প্লাটফর্ম প্রচারণার কাজ করে থাকে ‘লিনাক্স ফাউন্ডেশন’। এই ফাউন্ডেশনের অন্যান্য প্লাটিনাম সদস্যের মধ্যে গুগল, ফেইসবুক এবং স্যামসাংয়ের মতো প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর আগে লিনাক্স এবং মাইক্রোসফটকে এক সঙ্গে কাজ করতে দেখা যায়নি। ২০০১ সালে প্রতিষ্ঠানের নির্বাহী কর্মকর্তা স্টিভ বলমার বলেছিলেন, “লিনাক্স হলো একটি ক্যান্সার এটি যে বুদ্ধিমান সম্পত্তির সংস্পর্শে আসে সেখানেই ছড়িয়ে পড়ে।” এর ১৫ বছর পরে নতুন প্রধান সাত্যিয়া নাদেলার নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠানের অনেক অগ্রাধিকারেই পরিবর্তন এসেছে। বর্তমানে ক্লাউড ও অনলাইন স্টোরেজ এবং ডেটা প্রসেসিং সার্ভিসেই বেশি মনযোগ দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। এই সময়ের মধ্যে লিনাক্সের আধিপত্যও বেড়েছে অনেক। জেডডিনেট-এর এক ব্লগ পোস্টে বলা হয়, “শুধু ডেস্কটপেই এখন পর্যন্ত মাইক্রোসফট বর্তমান রয়েছে। ক্লাউড, সুপারকম্পিউটার এবং সার্ভারসহ সব জায়গায় এটি লিনাক্স-এর বিশ্ব।” এ বিষয়ে মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তারা আগে ক্লাউড এবং মোবাইল সেবার অভিজ্ঞতা বাড়াতে ডেভেলাপারদের অনুপ্রাণিত করতে চায়। “দলের সঙ্গে একত্রিত হয়ে আমরা খোলা, নমনীয় এবং বুদ্ধিমান টুল এবং ক্লাউড সেবা দিতে চাই যাতে প্রতিজন ডেভেলাপারকে অভূতপূর্ব পর্যায়ের উদ্ভাবন করতে সহায়তা করা যায়,” বলেন মাইক্রোসফটের স্কট গুথরি। লিনাক্স ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক জিম জেমলিন বলেন, “মাইক্রোসফটের জন্য মেম্বারশিপ একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। তা ছাড়াও ওপেন-সোর্স প্রযুক্তিতে অবদান এবং ব্যবহারের জন্য মাইক্রোসফট পরিণত এবং পূর্ণবর্ধিত হয়েছে।”