পৌর নির্বাচন-২০১৫ রহনপুরে চলছে শেষ মুহুর্তের প্রচার-প্রচারণা জয়ের ব্যপারে ৩ প্রার্থীই আশাবাদী

93

gourbangla logo

আসন্ন পৌর নির্বাচনে চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুর পৌরসভায় নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই সরগরম হয়ে উঠেছে শেষ মুহুর্তের নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা। এবার নির্বাচনে মেয়র পদে ৩ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে প্রার্থী  ৩৮ জন ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মেয়র পদে দলের সমর্থন নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামীলীগের গোলাম রাব্বানী বিশ্বাস (নৌকা) ও বিএনপি’র তারিক আহমদ (ধানের শীষ) এবং  স্বতন্ত্র প্রার্থী  হিসেবে জামায়াত নেতা (নারিকেল গাছ) প্রতীকে। রহনপুর পৌরসভায় এবার ভোটার সংখ্যা ২৩ হাজার ৩’শ ৯০ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১১ হাজার ৫’শ ২২ জন,মহিলা ভোটার ১১ হাজার ৮’শ ৬৮ জন। এদিকে ৩০ ডিসেম্বর পৌর নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থীদের পোস্টার,ফেস্টুন ও ব্যানারে ছেয়ে গেছে গোটা রহনপুর পৌর এলাকা। মাইকিং এর সাথে সাথে নানা প্রতিশ্রুতির গান তৈরি করে ভোটারদের মনোযোগ আকর্ষণের চেষ্টা করছে প্রার্থীরা। হাট-বাজার,চায়ের দোকান,মাঠে-ঘাটে সব জায়গায় ভোটের আমেজ লক্ষ্য করা গেছে এবং কে জয়লাভ করবে তার হিসাব নিকাশে ব্যস্ত ভোটাররা। ভোটারা তাদের পছন্দের প্রতীকে ভোট দিতে অধীর আগ্রহে প্রহর গুনছে। মূলত নৌকা ও ধানের শীষের মধ্যে মূল লড়াইয়ের আভাস পাওয়া গেলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী জাময়াত নেতা প্রভাষক মিজানুর রহমানও জয়ের ব্যপারে আশাবাদী । আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম রাব্বানী বিশ্বাস বর্তমান মেয়র পদে আসীন থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তার পক্ষে মূল দল ছাড়াও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা একযোগে কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়াও এলাকার সাবেক সংসদ সদস্য জিয়াউর রহমানকেও তার পক্ষে জনসংযোগ করতে দেখা যাচ্ছে। তিনি স্থানীয় সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা বিশ্বাসের ছোটভাই হওয়ায় নির্বাচনে তার জন্য মর্যাদার লড়াই হয়ে দাঁড়িয়েছে।  অপরদিকে বিএনপি প্রার্থী তারিক আহমদ দলীয় প্রতীক পেলেও তারপক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় স্থানীয় বিএনপির একটি অংশকে নিরবতা পালন করছে বলে জানা গেছে। এ প্রসঙ্গে বিএনপি প্রার্থী তারিক আহমদ জানান, তার নির্বাচনী প্রচারণায় সকলের অংশ গ্রহণ নিশ্চিত করতে গত ১৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত বর্ধিত সভায় সকলকে চিঠি দেয়া হলেও কয়েকজন নেতা তাতে অংশ নেননি। তবে দলের নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হয়ে তার পক্ষে কাজ করছে বলেও তিনি দাবি করেন। জামায়াত নেতা প্রভাষক মিজানুর রহমান দলীয় প্রতীক না পাওয়ায় এবার তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ফলে ভাসমান ভোটাররা দু‘টি প্রধান রাজনৈতিক দলের প্রতীকের দিকে ঝুঁকে পড়লেও তিনি দলীয় ভোটের পাশাপাশি ব্যক্তি ইমেজে ভোট পাবেন বলে আশা করছেন। উল্লেখ্য, ২৩ হাজার ৩’শ ৯০ জন ভোটার অধ্যূষিত এ পৌরসভার গত নির্বাচনে বর্তমান সাংসদ গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস মেয়র নির্বাচিত হন। পরে তিনি মেয়র পদটি ছেড়ে দেয়ায় ২০১৪ সালের ৫ এপ্রিল অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনে তার ছোটভাই গোলাম রাব্বানী বিশ্বাস মেয়র নির্বাচিত হন।