পেরুর সোনার খনিতে দুর্ঘটনায় সাত শ্রমিকের মৃত্যু

2

দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরুর দক্ষিণাঞ্চলের একটি ছোট সোনার খনিতে অন্তত সাত জন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। দুর্ঘটনায় তাদের মৃত্যু হয়েছে, এমনটি ধারণা করা হচ্ছে বলে স্থানীয় পুলিশ জানিয়েছে। রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। গত বৃহস্পতিবার স্থানীয় পুলিশ প্রধান এনরিকে ফেলিপে মনরয় জানান, লা রিনকোনাদা শহরের নিকটবর্তী খনিটির দেড় কিলোমিটার গভীরে মৃতদেহগুলো পাওয়া গেছে। তাদের শরীরে জখমের চিহ্ন ছিল। প্রাথমিক সাক্ষ্যপ্রমাণে খনিটিতে একটি ধসের ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ঐ অঞ্চলে এ ধরনের কয়েক শ ছোট ছোট সোনার খনি আছে। সেগুলোর মধ্যে অনেকগুলোরই খনি পরিচালনার বৈধ অনুমতিপত্র নেই। জানা গেছে, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম কপার ও সপ্তম বৃহত্তম সোনা উৎপাদনকারী দেশ পেরুর অবৈধ খনিগুলোতে প্রায়ই এ ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে। এসব খনিতে শ্রমিকরা কোনো নিরাপত্তা ব্যবস্থা অনুসরণ না করেই এবং পরিবেশগত সুরক্ষার তোয়াক্কা না করে আকরিকের জন্য খোঁড়াখুঁড়ি করে থাকে। চলতি মাসের প্রথমদিকে পেরুর উত্তরাঞ্চলে একটি বড় সোনার খনিতে সশস্ত্র হামলার এক ঘটনায় ৯ নিরাপত্তা কর্মী নিহত হয়েছিল। অবৈধ খনিগুলোর পক্ষ হয়ে ‘অপরাধী দলগুলো’ হামলাটি চালিয়েছে বলে অভিযোগ পেরুর সরকার ও খনি কোম্পানিগুলোর।