পাকিস্তানে বন্যায় ক্ষতি অন্তত ’১০ বিলিয়ন ডলার’

4

বন্যায় পাকিস্তানের ৩ কোটি ৩৩ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, যা দেশের ২২ কোটি জনসংখ্যার ১৫ শতাংশেরও বেশি। পাকিস্তানের চলমান বন্যায় প্রাথমিক হিসাবে এক হাজার কোটি ডলারের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দেশটির পরিকল্পনামন্ত্রী জানিয়েছেন। মানুষের কর্মকা-ের ফলে স্ষ্টৃ জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবের কারণে অস্বাভাবিক বৃষ্টি ও বন্যা হয়েছে আর এ কারণে এই দুর্যোগে পাকিস্তানকে সাহায্য করার ক্ষেত্রে বিশ্বের একটি বাধ্যবাধকতা রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি, জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টর্স। রেকর্ডভাঙা বর্ষকালীন বৃষ্টিতে নজিরবিহীন হড়কা বানে জমির ফসল, রাস্তা, সেতু ও অবকাঠামো ভেসে যায় এবং মৃত্যু হাজার ছাড়িয়ে যায়।

বন্যায় পাকিস্তানের ৩ কোটি ৩৩ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, যা দেশের ২২ কোটি জনসংখ্যার ১৫ শতাংশেরও বেশি। দেশটির জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী পরিস্থিতিকে ‘মহাকাব্যিক পর্যায়ের জলবায়ুজনিত মানবিক সংকট’বলে অভিহিত করেছেন। দেশটির পরিকল্পনামন্ত্রী আহসান ইকবাল নিজের দপ্তরে বসে রয়টার্সকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, “আমরা মনে হয় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বিশাল হবে। এখন পর্যন্ত, যদিও সময়ের আগেই বলা হচ্ছে, প্রাথমিক হিসাবে ক্ষতিটা অনেক বড়, এটি ১০ কোটি ডলারেরও বেশি হবে। “এ পর্যন্ত এক হাজার মানুষের প্রাণহানি হয়েছে। প্রায় ১০ লাখ ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মানুষ তাদের জীবিকা পুরোপুরি হারিয়েছে।” ইকবাল এবারের বন্যাকে দেশটিতে হওয়া ২০১০ সালের বন্যার চেয়ে মারাত্মক বলে চিহ্নিত করেন, ওই আগের বন্যার জন্য জাতিসংঘ তাদের সবচেয়ে বড় দুর্যোগ সহায়তার আবেদন জারি করেছিল।

ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে ও পুনর্বাসন, পুনর্নিমাণে পাঁচ বছর লাগতে পারে এবং কিছুদিনের মধ্যেই তীব্র খাদ্য ঘাটতি দেখা দিতে পারে বলে সতর্ক করেন তিনি। দেশটির অর্থমন্ত্রী মিফতাহ ইসমাইল জানিয়েছেন, খাদ্য ঘাটতি মেটাতে প্রতিবেশী ভারত থেকে সবজি আমদানি করার কথা বিবেচনা করা হতে পারে। দীর্ঘ দিন ধরেই এই দুই প্রতিবেশীর মধ্যে কোনো বাণিজ্য হচ্ছে না। পাকিস্তানের জিও নিউ টেলিভিশনকে ইসমাইল বলেন, “আমরা ভারত থেকে সবজি আমদানির কথা বিবেচনা করতে পারি।”পাশাপাশি তুরস্ক ও ইরানসহ খাদ্যের অন্যান্য উৎসগুলোও বিবেচনায় রাখা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। বন্যার কারণে ফসল নষ্ট হওয়ায় ও সড়ক যোগাযোগ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় পাকিস্তানে এরইমধ্যে খাদ্যের পণ্যের দাম অনেক বেড়ে গেছে।

পাকিস্তান আন্তর্জাতিক সাহায্যের জন্য আবেদন জানিয়েছে এবং ইতোমধ্যেই কয়েকটি দেশ ত্রাণ সরবরাহ ও উদ্ধারকারী দল পাঠিয়ে সাড়া দিয়েছে। সোমবার চীন সরকার জানিয়েছে, তারা অতিরিক্ত মানবিক ত্রাণ হিসেবে আরও ৩ লাখ ডলার নগদ অর্থ ও ২৫ হাজার তাঁবু পাঠাচ্ছে। এর আগে পাকিস্তানকে ৪ হাজার তাঁবু, ৫০ হাজার কম্বল ও ৫০ হাজার ত্রিপল পাঠিয়েছে চীন। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বন্যার বহু মানুষের প্রাণহানি ও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির জন্য পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আরিফউর রেহমান আলভিকে ফোন করে গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেছেন। সোমবার কানাডার সরকারও পাকিস্তানের বন্যার ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে ৫০ লাখ ডলার মানবিক সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।