পাকিস্তানের জয় আমিরের প্রত্যাবর্তন ম্যাচে

61

01-

নিজে নায়ক হয়ে ফিরতে পারেননি। তবে সবার মধ্যে যেন একটা উন্মাদনা সৃষ্টি করতে পেরেছেন। তাই তো আমিরের প্রত্যাবর্তনের দিনে পাকিস্তানের বোলারদের ছিল একে অপরকে ছাড়িয়ে যাওয়ার প্রতিযোগিতা। যেখানে সবচেয়ে সফল হয়েছেন ওয়াহাব রিয়াজ। তার সঙ্গে শহীদ আফ্রিদির ঘুর্ণি আর উমর গুলের গতি যোগ হয়ে অকল্যান্ডে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি২০ ম্যাচে ১৬ রানের জয় পায় পাকিস্তান। শুরুতে ব্যাট করে আট উইকেটে ১৭১ রান করে শহীদ আফ্রিদির দল। জবাবে নিউজিল্যান্ড ২০ ওভারে ১৫৫ রানে অলআউট হয়েছে।
ম্যাচের উত্তেজনা যেন আমিরের প্রত্যাবর্তন ইস্যুতে হারিয়ে যায়। ২০১০ সালে লর্ডস টেস্টে দুই সতীর্থ সালমান বাট ও মোহাম্মদ আসিফের সঙ্গে স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে পড়েন আমির। তাই মাত্র ১৭ বছরে অভিষেক হয়ে চমক লাগানো এই পেসারের ক্যারিয়ারে পাঁচ বছর নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়তে হয়েছে। গত বছর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর অকল্যান্ডেই প্রথম কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচে পাকিস্তানের জার্সি পরে মাঠে নামেন তিনি।
টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে পাকিস্তান লড়াকু ইনিংস খেলেছে মোহাম্মদ হাফিজের ব্যাট হতে। শুরুর দিকটাতে একপ্রান্তে আগলে রাখেন তিনি। অপরপ্রান্তে এ্যাডাম মিলনের বলে বিধ্বস্ত হতে থাকে পাক ব্যাটসম্যানরা। তবে তাকে একপ্রান্তে রেখে একে একে মাঠ ছাড়েন আহমেদ শেহজাদ, শোহায়েব মাকসুদ ও শোয়েব মালিক। এরপর হাফিজের সঙ্গে যোগ দেন ওমর আকমল। ৭৮ রানে তিন উইকেট হারানোর পর এই দুজন টিকে থাকতে লড়াই করেন।
এই জুটিতে ৩২ রান সংগৃহীত হওয়ার পর ইনিংসের সবচেয়ে সফল ব্যাটসম্যান হাফিজই আউট হয়ে যান। তবে পরবর্তী ব্যাটসম্যানদের মধ্যে আকমল, অধিনায়ক আফ্রিদি ও ইমাদ ওয়াসিম ছোট ছোট জুটি গড়ে সামনে এগুতে থাকেন। নির্ধারিত ওভার শেষে তাই পাকিস্তানের রান দাড়ায় ১৭১।
সর্বোচ্চ ৬১ রান করেন হাফিজ। ৪৭ বল থেকে আট চার ও দুই ছক্কার মারে এ রান করেন তিনি। এছাড়া ওমর আকমল ২৪, শহীদ আফ্রিদি ২৩ ও শোয়েব মালিক ২০ রান করেন। কিউই বোলারদের মধ্যে এ্যাডাম মিলনে ৩৭ রানের বিনিময়ে নেন চার্ উইকেট। মিচেল সাটনার দুটি এবং ট্রেন্ট বোল্ট ও ম্যাট হেনরি একটি করে উইকেট নেন।
জবাব দিতে নেমে ক্যান উইলিয়ামসন ও কলিন মুনরোর জোড়া হাফসেঞ্চুরিতেও পার পায়নি নিউজিল্যান্ড। অবশ্য দলটির অন্য ব্যাটসম্যানরা চরম ব্যর্থতার পরিচয় দেন। তৃতীয় সর্বোচ্চ ১১ রান এসেছে অতিরিক্ত থেকে। উইলিয়ামসন-মুনরোর বাইরে দুই অঙ্ক ছূঁয়েছেন কেবল ম্যাট হেনরি। উইলিয়ামসন ৬০ বলে ছয় চার ও এক ছক্কার মারে করেন ৭০ রান। আর ২৭ বলে দুই চার ও ছয় ছক্কার ঝড়ো ইনিংস খেলে মুনরো ৫৬ রান করেন।
পাকিস্তানের পাকিস্তানের ওয়াহাব রিয়াজ তিনটি এবং উমর গুল ও শহীদ আফ্রিদি দুটি করে উইকেট নিয়েছেন। আর একটি করে উইকেট নেন মোহাম্মদ আমির ও ইমাদ ওয়াসিম। ম্যাচসেরা হয়েছেন পাকিস্তান অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি।