পশু-পাখি ও জীব-জন্তুর অধিকার রক্ষায় ইসলাম

192

03বর্তমান সভ্যতাই কেবল পশু-প্রাণীর সংরক্ষণ ও অধিকার বিষয়ে কথা বলেনি, শান্তি ও মানবতার ধর্ম ইসলামও এ বিষয়ে প্রচুর দিকনির্দেশনা দিয়েছে।
পশু-পাখি ও জীব-জন্তু আল্লাহতায়ালার অনন্য দান। আল্লাহতায়ালা নানাবিধ সুবিধার জন্য এসব সৃষ্টি করেছেন। ইরশাদ হয়েছে, আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘নিশ্চয়ই আমি আদম-সন্তানকে মর্যাদা দান করেছি, আমি তাদেরকে স্থলে ও জলে চলাচলের বাহন দান করেছি; তাদের উত্তম জীবনোপকরণ প্রদান করেছি এবং তাদের অনেক সৃষ্ট বস্তুর ওপর শ্রেষ্ঠত্ব দান করেছি।’ -সূরা বনি ইসরাইল: ৭০
ইসলাম জীব-জন্তু সংরক্ষণের নির্দেশ দিয়েছে। অযথা কোনো পশুকে হত্যা বা উচ্ছেদ করতে নিষেধ করেছে। হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) জীব-জন্তুকে সংরক্ষণের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি জীব-জানোয়ারকে লক্ষ্য বানিয়ে তার দিকে তীর নিক্ষেপ করতে নিষেধ করেছেন।
একদা ইবনে ওমর (রা.) কোরাইশের কিছু যুবকের কাছ দিয়ে যাচ্ছিলেন। তিনি লক্ষ্য করলেন, যুবকেরা পাখি ও মুরগিকে তাক করে (তীর নিক্ষেপ করে) লক্ষ্যবস্তুতে সঠিকভাবে আঘাত করার বিষয়ে প্রতিযোগিতা করছে। যখন তারা ইবনে ওমরকে দেখল, দৌড়ে পালাল। তখন ইবনে ওমর তাদের লক্ষ্য করে বললেন, ‘আল্লাহর রাসূল (সা.) যারা প্রাণীকে লক্ষ্যবস্তু বানায় তাদের অভিশাপ করেছেন।’ -সহিহ মুসলিম
পশু-পাখি সঠিকভাবে লালন-পালনের জন্যও গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে হাদিসে নানা ঘটনা বর্ণনা করা হয়েছে। এক হাদিসে বলা হয়েছে, ‘এক মহিলাকে শাস্তি প্রদান করা হয়েছে একটি বিড়ালকে আটক রেখে খাবার ও পানি না দেওয়ার কারণে। যদি সে বিড়ালটিকে ছেড়ে দিত তাহলে পোকা-মাকড় খেয়ে হলেও বাঁচতে পারত।’ -সহিহ বোখারি
আরেক হাদিসে আছে, একদা নবী করীম (সা.) একটি উটের পাশ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন। তিনি লক্ষ্য করলেন, উটটির পেট পিঠের সঙ্গে লেগে গেছে। তখন নবী (সা.) বললেন, এই অবোধ পশুর ব্যাপারে আল্লাহকে ভয় কর। সবল অবস্থায় এর পিঠে আরোহণ কর এবং সবল অবস্থায় একে ভক্ষণ কর।’ -আবু দাউদ
হজরত আয়েশা (রা.) বর্ণনা করেন, ‘আল্লাহর রাসূল (সা.)-এর পাশ দিয়ে কোনো বিড়াল হেঁটে গেলে তিনি তাকে পানির পাত্র এগিয়ে দিতেন এবং বিড়াল তা থেকে পান করত।’ -দারে কুতনি
হাদিসে এসেছে, ‘একদা এক ব্যক্তি হাঁটতে হাঁটতে পিপাসার্ত হয়ে গেল। অতঃপর লোকটি একটি কূপে নেমে পানি পান করে আসতেই একটি কুকুরকে পিপাসায় কাতরাতে দেখলেন; দেখলেন কুকুরটি তৃষ্ণায় ভিজা মাটি খাচ্ছে। তখন তিনি মনে মনে বললেন, কুকুরটির আমার মতোই পিপাসা লেগেছে, অতঃপর তিনি আবারও কূপে নেমে জুতায় পানি ভরে; পানিসহ জুতা মুখে করে উপরে এসে কুকুরটিকে পানি পান করালেন। অতঃপর আল্লাহ তার ওপর খুশি হয়ে তাকে ক্ষমা করে দিলেন। সাহাবিরা বললেন, হে আল্লাহর রাসূল! পশুর মধ্যেও কি আমাদের কোনো পুণ্য আছে? নবী (সা.) বললেন, প্রত্যেক প্রাণের মধ্যেই প্রতিদান রয়েছে।’ -সহিহ বোখারি
অন্য হাদিসে এসেছে, ‘আল্লাহতায়ালা প্রত্যেক কাজকে সুন্দরভাবে সম্পাদন করা অপরিহার্য করে দিয়েছেন। অতএব তোমরা কোনো পশু হত্যা করলে সুন্দরভাবে তা হত্যা কর। কোনো পশু জবাই করলে সুন্দরভাবে তা জবাই কর এবং কেউ পশু জবাই করলে জবাই করার অস্ত্র যেন ধারালো করে নেয় যাতে পশুর কষ্ট কম হয়।’ -সহিহ মুসলিম
নবী (সা.) বলেন, ‘কোনো মুসলমানের লাগানো শস্য বা গাছ থেকে কোনো পাখি, মানুষ অথবা কোনো জন্তু খেলে তার জন্য ওই ব্যক্তির সদকার সওয়াব হবে।’ -সহিহ বোখারি
পশুর সঙ্গে সদয় আচরণ ও দয়া প্রদর্শনের একটি দিক হচ্ছে, যে পশু হিং¯্র ও মানুষের ক্ষতি করে সেসব পশুকে সুন্দরভাবে হত্যার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কোনোভাবেই তাকে কষ্ট দিয়ে মারা যাবে না। যেসব পশুকে হত্যার অনুমতি দেওয়া হয়েছে তা হচ্ছে- বৃদ্ধ কুকুর, ইঁদুর, বিচ্ছু ও সাপ। তবে এগুলোকে আগুনে পুড়িয়ে মারা যাবে না।
আর যেসব জীব-জন্তুর গোশত আমরা ভক্ষণ করি; যেমন- গরু, ছাগল ও ভেড়া ইত্যাদি এবং গৃহপালিত পাখি, এগুলোকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে সুন্দরমত জবাই করতে হবে যাতে তাদের কষ্ট কম হয়।
হাদিসে এসেছে, ‘ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, একদা এক ব্যক্তি একটি ভেড়া জবাই করার জন্য শোয়ানো অবস্থায় রেখে চাকুতে ধার দিচ্ছিলেন। তখন নবী (সা.) বললেন, তুমি কি পশুটিকে দু’বার মারতে চাও? তুমি কি পশুটিকে শোয়ানোর আগে চাকুতে ধার দিয়ে নিতে পারতে না?
অন্য হাদিসে এসেছে, ‘ইবনে মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, একদা আমরা রাসূল (সা.)-এর সঙ্গে সফরে ছিলাম। নবী (সা.) তার হাজত মেটানোর জন্য গেলে আমরা একটি পাখিকে দু’টি ছানাসহ দেখতে পেলাম এবং আমরা পাখির বাচ্চা দু’টি নিয়ে এলাম। এ অবস্থায় পাখিটি বাচ্চা দু’টির মায়ায় আমাদের পিছু নিল এবং ডাকাডাকি করছিল। নবী (সা.) হাজত থেকে ফিরে এ দৃশ্য দেখে বললেন, ‘কে এদেরকে পিতা-মাতা থেকে ছিন্ন করে ভীতির মধ্যে ফেলে দিল, যাও বাচ্চা দু’টিকে তাদের পিতা-মাতার কাছে ফিরিয়ে দাও।’
কোনো পশু রোগে আক্রান্ত হলে তাকে দ্রুত চিকিৎসার বিষয়েও জোর দেওয়া হয়েছে। রোগাক্রান্ত পশুকে সুস্থ পশু থেকে পৃথক রাখতে বলা হয়েছে। যাতে করে অন্য পশু রোগাক্রান্ত না হয়।
এভাবেই ইসলাম পশু-পাখির অধিকার সংরক্ষণের বিষয়ে গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। মানুষের উচিত এসব দিকনির্দেশনা পুরোপুরি অনুসরণ করা। আল্লাহতায়ালা আমাদের তওফিক দান করুন। আমিন।