পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের প্রস্তুতিমূলক সভা

20

আগামী ২৫ জুন স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে স্বরণীয় করে রাখতে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২৫ থেকে ২৭ জুন তিনদিনের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে জেলা প্রশাসন। কর্মসূচির মধ্যে থাকবে আনন্দ শোভাযাত্রা, আলোচনাসভা, সেতুটি সংক্রান্ত রচনা ও কুইজ প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ইত্যাদি। উদ্বোধনী দিনে ব্যানার, ফেস্টুন নিয়ে বাজনা বাজিয়ে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাটি শহর প্রদক্ষিণ করবে। সঙ্গে থাকবে ট্রাক-শো আর বীর মুক্তিযোদ্ধারা থাকবেন বাসের মধ্যে। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বর থেকে শোভাযাত্রাটি শুরু হবে। সময় পরে জানানো হবে। এ উপলক্ষে শনিবার জেলা প্রশাসন আয়োজিত প্রস্তুতি সভায় এসব সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। সকলকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে কর্মসূচিতে অংশগ্রহণের আহ্বান জানানো হয়।
সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খান। তিনি বলেন-বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শি চিন্তার ফল হচ্ছে পদ্মা সেতু। এই সেতুর ফলে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের সার্বিক উন্নয়ন ঘটবে। বিশেষ করে অর্থনৈতিক উন্নয়ন হবে সব চেয়ে বেশি। এরফলে ওই অঞ্চলের মানুষের ভাগ্যের আমুল পরিবর্তন হবে। জেলা প্রশাসক প্রদানমন্ত্রীর ডেল্টা প্ল্যানের কথা বলতে গিয়ে একথা বলেন। তিনি আগামী ২৫জুন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলাকে ইতিহাসের পাতায় স্মরণীয় করে রাখতে সকলের অংশগ্রহণ কামনা করেন। তিনি নতুন প্রজন্মের মধ্যে দেশের এসব উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরার আহ্বান জানান।
সভায় জানানো হয় ২৫ জুন সকাল ৯টা থেকে শহরের পুরাতন স্টেডিয়ামে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার করা হবে।
প্রস্তুতি সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. জাকিউল ইসলামের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য দেন, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আফাজ উদ্দিন, সিভিল সার্জন ডা. এসএম মাহমুদুর রশিদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব আলম খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সামাদসহ বিভিন্ন দপ্তরের প্রতিনিধিবৃন্দ।
এসময় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইফফাত জাহানসহ জেলার সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, এনজিও প্রতিনিধি, চেম্বার প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।