নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন মাইজভান্ডারী

4

চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।
বৃহস্পতিবার সকালে মাইজভান্ডার দরবার শরীফের বাসভবনে সংবাদ সম্মেলন করে তিনি এ ঘোষণা দেন। পাশাপাশি নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর প্রতি তার সমর্থন ব্যক্ত করেন।
তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘ফটিকছড়িতে ভোটের সমীকরণে তরিকত প্রার্থীর কারণে নৌকার প্রার্থী ঝুঁকিতে পড়তে পারে বলে আমার আশঙ্কা রয়েছে। এ কারণে আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত ঘোষণা করছি। নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর প্রতি আমার সমর্থন জানাচ্ছি এবং ফটিকছড়ির ভোটারদের প্রতিও আহ্বান জানাই, আপনারা নৌকাকে বিজয়ী করে আগামী দিনেও শেখ হাসিনাকে সরকার গঠনের সুযোগ করে দিন।’
তিনি বলেন, ‘এবারের নির্বাচনে আমরা তরিকত ফেডারেশন থেকে ৪২টি আসনে প্রার্থী দিয়েছি। আমি সরে গেলাম, তবে দেশের ৪১ আসনে আমাদের প্রার্থীরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।’
সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেনÑ তরিকত ফেডারেশনের কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ তৈয়বুল বশর মাইজভান্ডারী, উপজেলা সভাপতি আলমগীর আলম, শাহ জালালসহ আরো অনেকে।
ফুলের মালা প্রতীকের প্রার্থী সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী সরে দাঁড়ানোয় এখন উল্লেখযোগ্য প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেনÑ সাবেক সংসদ সদস্য রফিকুল আনোয়ারের কন্যা সংরক্ষিত আসনের বর্তমান এমপি ও নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী খাদিজাতুল আনোয়ার সনি, তরমুজ প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী ফটিকছড়ি উপজেলার সদ্য পদত্যাগী চেয়ারম্যান এসএম আবু তৈয়ব ও বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির চেয়ারম্যান একতারা প্রতীকের প্রার্থী সৈয়দ সাইফুদ্দিন আহম্মদ মাইজভান্ডারী।
উল্লেখ্য, নজিবুল বশর এ আসন থেকে চারবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯১ সালে আওয়ামী লীগ থেকে, ১৯৯৬ সালের প্রহসনমূলক নির্বাচনে বিএনপি থেকে এবং ২০১৩ ও ২০১৮ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক তরিকত ফেডারেশন থেকে দুইবার এমপি হন তিনি।