“নায়ক হতে চেহারা নয়, অধ্যবসায় ও দক্ষতাই যথেষ্ট”

12

ভারতের তামিল সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেতা ধানুশ। তবে অভিনেতা হিসেবে তার খ্যাতি এখন বিশ্বজুড়ে। গতকাল বৃহস্পতিবার ছিলো এই অভিনেতার জন্মদিন। মাত্র ১৯ বছর বয়সে সিনেমা জগতে পা রাখেন ধানুশ। তার লুক নিয়ে সেই সময় অনেক সমালোচনা হয়। ‘নায়কোচিত’ লুক না থাকায় বিদ্রƒপও শুনতে হয় তাকে। তবে পরবর্তী সময়ে কঠোর পরিশ্রম ও অভিনয় দক্ষতা দিয়ে সবার মন জয় করেছেন। সঙ্গে এটিও প্রমাণ করেছেনÑ নায়ক হতে চেহারা নয়, অধ্যবসায় ও দক্ষতাই যথেষ্ট।

সিনেমা বাছাইয়ের ক্ষেত্রেও শুরু থেকে বেশ সচেতন ধানুশ। গল্প পছন্দের ব্যাপারে কখনোই আপস করেননি। চরিত্র পছন্দের ব্যাপারে সব সময়ই বৈচিত্র রাখেন তিনি। এ ক্ষেত্রে বক্স অফিসের ফলের বিষয়টি কখনোই গুরুত্ব দেন না। তামিল সিনেমায় সাফল্যের পাশাপাশি বলিউডেও দেখা গেছে তাকে। এর মাধ্যমে অনেক আগেই প্যান ইন্ডিয়া তারকা হিসেবে পরিচিত ধানুশ। এখানেই শেষ নয়, হলিউডেও এখন পরিচিত মুখ এই অভিনেতা। ২০১৮ সালে ‘দ্য এক্সট্রাঅডিনারি জার্নি অব দ্য ফাকির’-এর মাধ্যমে ইংরেজি ভাষার সিনেমায় তার অভিষেক হয়। সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে তার ‘দ্য গ্রে ম্যান’ সিনেমাটি।

দক্ষ অভিনেতার পাশাপাশি ধানুশ একজন গায়ক, গীতিকার, চিত্রনাট্যকার, প্রযোজক ও পরিচালক। তার গাওয়া অসংখ্য গানের মধ্যে ‘হোয়াই দিস কোলাবেরি ডি’ আজও মানুষের মুখে মুখে। ২০১৭ সালে মুক্তি পাওয়া ‘পা পান্দি’ সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন তিনি। পরিচালক হিসেবে এটি ছিল তার প্রথম সিনেমা। এর চিত্রনাট্যও লিখেছেন ধানুশ। তার প্রযোজিত উল্লেখযোগ্য সিনেমাগুলো হলো: ‘থ্রি’, ‘মারি’, ‘কালা’, ‘বড়া চেন্নাই’, মারি টু’ ইত্যাদি। ধানুশ সিনেমার কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ অসংখ্য পুরস্কার জিতেছেন। এর মধ্যে চারবার ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, আটবার ফিল্মফেয়ার, দশবার বিজয় অ্যাওয়ার্ডস ও চৌদ্দবার সাউথ ইন্ডিয়ান ইন্টারন্যাশনাল মুভি অ্যাওয়ার্ডস পেয়েছেন। পাশাপাশি বিখ্যাত ফোর্বস ম্যাগাজিনের জরিপে ১০০ ভারতীয় তারকার তালিকায় পর পর ৬ বছর তার নাম এসেছে।