নবাগত রূপগঞ্জ টাইগার্সের কাছে পাত্তাই পেল না আবাহনী

8

প্রথমবার ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট খেলতে নেমে বাজিমাত করেছে রূপগঞ্জ টাইগার্স। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন আবাহনীকে উড়িয়ে দিয়ে শুভ সূচনা করেছে। শুরুতে আবাহনীকে ২৫৫ রানে আটকে দেয় রূপগঞ্জ। মাঝারি মানের সেই লক্ষ্য ৪৮ বল হাতে রেখে ৩ উইকেট হারিয়েই ছুঁয়ে ফেলেছে প্রথম বিভাগ থেকে উঠে আসা দল। আবাহনীর হয়ে নাঈম শেখের সেঞ্চুরিও ম্লান হয়ে গেছে জাকির হাসানের সেঞ্চুরিতে। মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করা আবাহনী রূপগঞ্জকে লক্ষ্য দেয় ২৫৬ রানের। সেই লক্ষ্যে ওপেনিং জুটিতে দারুণ শুরু পায় প্রথমবার খেলতে নামা রূপগঞ্জ। ওপেনার মিজানুর রহমান ও জাকির হাসান মিলেই তুলে ফেলেন ১৬৬ রান। ৭ রানের জন্য মিজানুর সেঞ্চুরি বঞ্চিত হলেও জাকির তুলে নিতে পেরেছেন লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটের প্রথম সেঞ্চুরি। ৮২ বলে ১২ চার ও ৩ ছক্কায় নিজের ৯৭ রানের ইনিংসটি সাজান মিজানুর। জয় থেকে ৮ রান দূরে থাকতে আউট হন উইকেটকিপার ব্যাটার জাকির। ১১৬ বলে ১৫ চার ও ২ ছক্কায় তিনি খেলেন ১১৭ রানের ইনিংস।

বাকি পথটুকু মার্শাল (২৩) ও ফজলে মাহমুদ (১০) মিলে খুব সহজেই পেরিয়ে গেছেন। রূপগঞ্জের ব্যাটারদের বিপক্ষে আবাহনীর বোলারদের কেউই হুমকি হয়ে উঠতে পারেননি। দীর্ঘদিন পর মাঠে নামা সাইফউদ্দিন ব্যাট হাতে ভালো করলেও বল হাতে উইকেটশূন্য ছিলেন। কামরুল ইসলাম রাব্বি দুটি এবং তানজিম হাসান সাকিব একটি উইকেট নিয়েছেন। এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে বিপর্যয়ে পড়ে যায় আবাহনী। ৪৮ রানে হারায় চার উইকেট। বিপদে পড়ে যাওয়া দলকে উদ্ধার করেন সম্প্রতি কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়া নাঈম শেখ।

তার ১১৫ রানের ইনিংসে ভর করেই আবাহনী ২৫৫ রানের মাঝারি মানের সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছে। এটি নাঈমের লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি। নাঈম ছাড়া দীর্ঘদিন পরে মাঠে নামা জাতীয় দলের পেস বোলিং অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিনও রানের দেখা পেয়েছেন। ৮ নম্বরে নেমে ৪৩ বলে ৪০ রানের ইনিংস খেলেছেন। মোসাদ্দেকের ব্যাট থেকে আসে ৩৭ রানের ইনিংস। সবমিলিয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে সমৃদ্ধ স্কোর বোর্ড পায় আবাহনী। রূপগঞ্জের বোলারদের মধ্যে মুকিদুল ইসলাম সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নেন। এ ছাড়া শরিফউল্লাহ ও ফরহাদ রেজা নেন দুটি করে উইকেট।