নচোল পৌর নির্বাচন : কাউন্সিলরে ৪ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৩ নতুন মুখ

167

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল পৌর নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে। উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দেন ভোটাররা। রবিবার সকাল ৮টায় শুরু হয়ে ভোটগ্রহণ চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। সন্ধ্যায় উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মো. মোতাওয়াক্কিল রহমান।
নির্বাচনে ৯টি সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ৩৮ জন প্রার্থী। এদের মধ্যে ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে মনিরুল ইসলাম ৩৯২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন উটপাখি প্রতীকের এসএম নাজির। তিনি পান ৩৭৯ ভোট। ২নং ওয়ার্ডে ৪৩২ ভোট পেয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন পানির বোতল প্রতীকের শফিকুল ইসলাম। ৩৭৩ ভোট পেয়ে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন উটপাখি প্রতীকের গোলাম রাব্বানী। ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হয়েছেন মতিউর রহমান। তিনি পাঞ্জাবি প্রতীকে ৪২৯ ভোট পেয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আবদুল হাই উটপাখি প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ৩৯৬টি।
৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে আকবর আলী ২৩৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন ডালিম প্রতীকের কামাল আহম্মেদ। তিনি পান ২১২ ভোট। ৫নং ওয়ার্ডে ৫১৬ ভোট পেয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন ডালিম প্রতীকের মনিরুজ্জামান। ৪৬৮ ভোট পেয়ে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন পানির বোতল প্রতীকের আবদুল খালেক। ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হয়েছেন সানাউল্লাহ। তিনি উটপাখি প্রতীকে ৬০২ ভোট পেয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শফিকুল পানির বোতল প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ২১৮টি।
৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে উটপাখি প্রতীকে হেলাল উদ্দিন ১ হাজার ১০১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন ঢেঁড়শ প্রতীকের তহুরুজ্জামান তুষার। তিনি পান ৪৬৫ ভোট। ৮নং ওয়ার্ডে ৫৯২ ভোট পেয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন ডালিম প্রতীকের তারেক রহমান। ৩৯৯ ভোট পেয়ে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন পানির বোতল প্রতীকের সফিকুল ইসলাম। ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হয়েছেন আজিজুর রহমান। তিনি উটপাখি প্রতীকে ৪৪৬ ভোট পেয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আফসার আলী পানির বোতল প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ৩৩৪টি।
উল্লেখ্য, ৯টি ওয়ার্ডের মধ্যে এবার চারটিতে কাউন্সিলর হিসেবে নতুন মুখ নির্বাচিত হয়েছেন।
তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে প্রার্থী ছিলেন ৮ জন। এদের মধ্যে সংরক্ষিত-১ ওয়ার্ডে ১ হাজার ৬১২ ভোট পেয়ে আনারস প্রতীকের ফাতেমা বেগম কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফিরোজা খাতুন চশমা প্রতীকে পান ১ হাজার ৫০৪ ভোট। সংরক্ষিত-২ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন নাজনিন আখতার। তিনি বলপেন প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ১ হাজার ৮৩৯টি। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আরিফা বেগম চশমা প্রতীকে পান ৯৯৫ ভোট। সংরক্ষিত-৩ ওয়ার্ডে ৩ হাজার ৩৯৬ ভোট পেয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন অটোরিকশা প্রতীকের শাহনাজ পারভিন। আনারস প্রতীকে ১ হাজার ৬৭১ ভোট পেয়ে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আরমানী বেগম।
উল্লেখ্য, ৩টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে তিনজনই এবার নতুন মুখ এসেছেন। টানা দুইবার পৌর নির্বাচনে জয়ী ফিরোজা খাতুন (সংরক্ষিত-১), আরিফা বেগম (সংরক্ষিত-২) ও আরমানী বেগম (সংরক্ষিত-৩) এবার পরাজিত হয়েছেন।