দেশ এখন গভীর সঙ্কটে : রিজভী

47

রোহিঙ্গাসহ বিভিন্ন কারণে দেশ এখন গভীর সঙ্কটে বলে মন্তব্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন আওয়ামী নেতারা এ সঙ্কট নিরসনকে বেশি গুরুত্ব না দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নোবেল পুরস্কার এনে দেয়ার লবিংয়ে ব্যস্ত। মঙ্গলবার দুপুরে নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। রিজভী বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী জনগণের দুর্ভোগের দিকে না তাকিয়ে নোবেল পুরস্কারের জন্য ছুটছেন। যেন ‘রোম যখন জ্বলছে, নীরু তখন বাঁশী বাজাচ্ছে।’ তিনি বলেন, দেশে গণতন্ত্র নেই, আইনের শাসন নেই, মানুষের বাক-ব্যক্তি স্বাধীনতা নেই, জানমালের নিরাপত্তা নেই, বিরতিহীনভাবে গুমম খুন, অপহরণ ও বিচার বহির্ভূত হত্যা চলছে। নারী-শিশু নির্যাতনের মাত্রাও এখন ভয়াবহ রুপ ধারণ করেছে, আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি ভেঙ্গে পড়েছে। ভয়াল দুঃশাসনের কবলে গোটা জাতি। রিজভী বলেন, দেশের মানুষ এখন মহাদুর্যোগে। প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের মতো আন্তর্জাতিক ফোরামে গিয়েও রোহিঙ্গা সঙ্কটের কোনো সুরাহা করতে না পেরে ব্যর্থ হয়ে দেশে ফিওে আসছেন। তিনি বলেন, মিয়ানমার বাহিনীর গণহত্যা ও নির্যাতনে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনের চুক্তিতে মিয়ানমার সম্মত হয়েছে বলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন। জাতিসংঘকে পাশ কাটিয়ে এ ধরনের চুক্তি ভাওতাবাজি ছাড়া আর কিছুই নয়।রিজভী বলেন, মিয়ানমারের মন্ত্রী বাংলাদেশ সফরের সময়ও সেখানে রোঙ্গিাদের ওপর বর্বর নির্যাতন করা হয়েছে। তাদের নির্যাতনে সেখান থেকে এখনও হাজার হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে আসছেন। আর আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশবাসীকে মন ভোলানো কথা বলেছেন। কিন্তু বৈঠকটি আইওয়াশ ছাড়া আর কিছুই নয়। বৈঠকে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন একটি সুদীর্ঘ বিলম্বিত পথ। রোহিঙ্গাদের পূর্ণ নিরাপত্তাসহ স্বদেশে ফেরত নেয়ার কোনো তাগিদ নেই সেখানে। রিজভী বলেন, সোমবার বিকালে উলুবনিয়া সীমান্ত দিয়ে ১০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে এসেছেন। এছাড়া টেকনাফের নাইট্যংপাড়া ও শাহপরীর দ্বীপ পয়েন্ট দিয়েও রোহিঙ্গা প্রবেশ করছে। এসব বিষয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিয়ানমারের মন্ত্রীকে কিছুই বলেননি। রুহুল কবির রিজভী বলেন, মন্ত্রীদের বাগাড়ম্বর বক্তব্যের পরও চালের মূল্য কমেনি। পাইকারি বাজারে দু‘এক টাকা কমলেও খুচরা বাজারে চালের দাম এখনও কমেনি। ফলে ভোক্তা পর্যায়ে চালের দাম সহনীয় পর্যায়ে নামছে না। বর্তমানে মিল গেটে সরু চালের দাম রাখা হচ্ছে মানভেদে প্রতি কেজি ৬০ থেকে ৬৫ টাকা। পাইকারি পর্যায়ে এটি কেজিতে ৬৫ থেকে ৬৮ টাকা। আর খুচরা বাজারে এ চালের দাম কেজিতে ৬৫ থেকে ৭০ টাকার মধ্যে এবং গলির মোড়ের বেশিরভাগ দোকানি কোনো সরু চাল ৭০ টাকার নিচে বিক্রি করছেন না। রিজভী বলেন, মোটা চাল এখনও ৫০ টাকার কমে পাওয়া যাচ্ছেনা। এদিকে পেঁয়াজ, আদা, রসুন, কাঁচা তরিতরকারীসহ নিত্যপণ্যের দাম এখন আকাশচুম্বি। ৬০ টাকার নীচে কোন তরিতরকারী কেনা যাচ্ছেনা। কাচঁবাজারে সকল পণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে বাজারে আগুন জ্বলছে। চাল-ডাল-লবন-তেলসহ নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে মানুষের জীবন। এরই মধ্যে কয়েক দফা গ্যাস-বিদ্যূতের মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। আবারও বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধির উদ্যোগ বাস্তায়ন চুড়ান্ত পর্যায়ে আছে। ফলে মধ্যবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তদের জীবন হয়ে উঠেছে মানবেতর। এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির মুখপাত্র রুহুল কবির রিজভী বলেন, প্রধান বিচারপতি িেসরন্দ্র কুমার সিনহার ছুটিতে যাওয়ার বিষয়ে বিএনপি দলীয় ফোরামের বৈঠক শেষে প্রতিক্রিয়া জানাবে। তার আগে এ বিষয়ে কিছু বলা ঠিক হবে না। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব-উন নবী-খান সোহেলের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় একটি বানোয়াট ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রনোদিত মামলা দায়ের করা হয়েছে অভিযোগ কওে রিজভী বলেন, মামলা দায়ের করে সোহেলকে নানাভাবে হয়রানী করা হচ্ছে। আমি বিএনপির পক্ষ থেকে অবিলম্বে তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আজিজুল বারী হেলাল, আবদুস সালাম আজাদ, হাবিবুল ইসলাম হাবীব, মুনির হোসেন, আসাদুল করিম শাহীন, আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।