দেশে ফিরলেন ডমিঙ্গো

5

লম্বা সময় ধরে দূরে ছিলেন প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। বলা যায়, চলমান বিশ্বকাপের আগে প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোকে একপ্রকার ‘ওএসডি’ করে রেখেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)! এশিয়া কাপের ঠিক আগ মুহূর্তে অস্ট্রেলিয়া থেকে উড়িয়ে আনা হয় শ্রীধরন শ্রীরামকে। সামলেছেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও। তবে বিরতির পর ডমিঙ্গোকে ফের দায়িত্বে ফেরানো হচ্ছে। আসন্ন ভারত সিরিজে প্রধান কোচের দায়িত্বে দেখা যাবে প্রোটিয়া কোচকে। সোমবার সকাল সাড়ে ৮টায় লম্বা ছুটি কাটিয়ে বাংলাদেশে পা রেখেছেন তিনি। বিসিবি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ততা মাথায় রেখে ফরম্যাট অনুযায়ী কোচ নিয়োগ দিতে চেয়েছিল।

শ্রীধরন শ্রীরামকে সেই পরিকল্পনা থেকেই কোচিং স্টাফে নেওয়া। তবে আপাতত তার চুক্তি নবায়ন করা হচ্ছে না। এই কারণেই পুরনো কোচ ডমিঙ্গোর কাছে ফিরতে হয়েছে। আগামী সপ্তাহ থেকে শুরু হবে ভারত সিরিজের প্রস্তুতি। এ ব্যাপারে ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস সংবাদ মাধ্যমকে আগেই বলেছেন, ‘কোন সময়, কোন সিরিজ, কোন ফরম্যাট নাকি সব ফরম্যাটে শ্রীরামকে পাওয়া যাবে – এসব বিষয় নিয়ে আগে আলোচনা করতে হবে। আমাদের তো অলরেডি রাসেল ডমিঙ্গো আছেন, যিনি এখানে কাজ করছেন। তিনিই আসন্ন সিরিজে দায়িত্ব সামলাবেন। পরববর্তীতে আমরা কীভাবে এগোবো, সেগুলো নিয়ে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেবো।’ ১ ডিসেম্বর রোহিত শর্মারা বাংলাদেশ সফরে আসবেন।

সফরে তারা তিনটি ওয়ানডে ছাড়াও দুটি টেস্ট খেলবেন। ওয়ানডে সুপার লিগের অংশ না হলেও টেস্ট সিরিজ টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ। ইতোমধ্যে দুই ফরম্যাটের জন্য ভারত শক্তিশালী দল গঠন করেছে। আগামী বছর ভারতে হবে ওয়ানডে বিশ্বকাপ; বলা চলে তামিম ইকবালের নেতৃত্বাধীন দলের বিশ্বকাপ মিশন শুরু হবে এই সিরিজ দিয়েই। বাংলাদেশ-ভারতের সিরিজ শুরু হবে ওয়ানডে দিয়ে। আগামী ১ ডিসেম্বর ঢাকায় পা রাখবে ভারত। ৩ দিন বিশ্রাম নিয়ে ৪ ডিসেম্বর প্রথম ম্যাচ খেলতে নামবে তারা। সিরিজের শেষ দুটি ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হবে ৭ ও ১০ ডিসেম্বর। তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের সব ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে। বন্দরনগরী চট্টগ্রামে হবে দুই দলের প্রথম টেস্ট। ১৪ থেকে ১৮ ডিসেম্বর ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে। দ্বিতীয় টেস্ট ঢাকায় ২২ থেকে ২৬ ডিসেম্বর।