দুটি আসনে সুসংগঠিত আ.লীগ, দুটিতে দোটানায় বিএনপি

9

আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মেনানয়নপত্র বাছাইয়ের তারিখ আগামী ২ ডিসেম্বর রবিবার এবং প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৯ ডিসেম্বর রবিবার। এবার এ নির্বাচনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার তিনটি সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও অন্যান্য দলসহ স্বতন্ত্রভাবে ২৫ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।
নির্বাচন আচরণবিধি মোবেক প্রতীক বরাদ্দের পূর্বে প্রচার প্রচারণার উপর বিধিনিষেধ থাকলেও বসে নেই প্রার্থীরা। তারা নির্বাচনী প্রচার প্রচারণাসহ কিভাবে ভোটারদের নিজের পক্ষে আনা যায়-তা নিয়ে পরিকল্পনা গ্রহণে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। তবে একটি আসনে আওয়ামী লীগ ও ২টিতে বিএনপির একাধিক প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করায় কিছুটা হলেও হতাশায় রয়েছেন দলীয় নেতা-কর্মীরা।
আওয়ামী লীগ
৪৫, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (সদর) আসনে দীর্ঘদিন ধরে জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওদুদ এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব রুহুল আমিন ও চিকিৎসক নেতা ডা. গোলাম রাব্বানী, ব্যবসায়ি সামিউল হক লিটন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দৌড়ে থাকলেও দলটির নির্বাচনী বোর্ড আব্দুল ওদুদকে প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করে। ইতো:পূর্বে অন্য নেতাদের মধ্যে একসাথে সরকারের উন্নয়ন কর্মকা- তুলে ধরার দৃষ্টান্ত জোরেসোরে দেখা না গেলেও আব্দুল ওদুদের সাথে বর্তমানে তারা এককাতারে সামিল হয়েছেন। বুধবার আব্দুল ওদুদের মনোনয়নপত্র দাখিলকালে তারা সকলে উপস্থিত হন। এতে দলীয় নেতা-কর্মী-সমর্থক ও সাধারণ ভোটারদের মাঝে জয়ের ব্যাপারে আস্থা তৈরি হয়েছে। নেতা-কর্মীদের মাঝে ফিরে এসেছে প্রাণ চাঞ্চল্য।
একই অবস্থা ৪৩, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১, (শিবগঞ্জ) আসনে। মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান সংসদ সদস্য গোলাম রাব্বানী ও সাবেক বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ এনামুল হককে ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুলের মনোনয়নপত্র দাখিলকালে দেখা না গেলেও অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী আওয়ামী লীগের বিজ্ঘান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ইঞ্চিনিয়ার মাহতাব উদ্দিনকে সদলবলে দেখা গেছে। সকলেই ভোটের মাঠে থাকবেন বলে দলীয় নেতা-কর্মীরা আশা করছেন।
অন্যদিকে ৪৪, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (গোমস্তাপুর-নাচোল-ভোলাহাট) আসনে দলীয় মনোনীত প্রার্থী মু.জিয়াউর রহমান ছাড়াও মনোয়নপত্র দাখিল করেছেন বর্তমান সংসদ সদস্য মোহা. গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস ও খরশিদ আলম বাচ্চু। গোলাম মোস্তফা বিশ্বাসের সমর্থকরা ইতোমধ্যে সংবাদ সম্মেলন করে প্রার্থী পরির্তনের দাবিও জানিয়েছে। এ নিয়ে হতাশায় রয়েছেন ওই নির্বাচনী এলাকার ভোটারেরা।
বিএনপি
চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২, (গোমস্তাপুর-নাচোল-ভোলাহাট) আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আমিনুল ইসলাম একাই মনোনয়ন দাখিল করলেও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ (শিবগঞ্জ) ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (সদর) আসনের প্রার্থী চূড়ান্ত না হওয়ায় ধুম্রজালের মধ্যে রয়েছে বিএনপির নেতা-কর্মীরা। দলটির মহাসচিবের ভাষ্য অনুযায়ি কৌশলগত কারণে দেশের বেশ কিছু আসনের মতো এ ২টি আসনে ২জন করে প্রার্থী দেওয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে শিবগঞ্জ আসনে বেলাল-ই-বাকী ইদ্রিশী ও অধ্যাপক শাহজাহান মিঞা এবং সদর আসনে হারুনুর রশীদ ও আব্দুল ওয়াহেদ মনোয়নপত্র দাখিল করেছেন। তবে শেষ পর্যন্ত দলটি কার কার হাতে ধানের শীষ তুলে দিবে সে দিকেই এখন তাকিয়ে আছেন দলটির নেতা-কর্মীরা। তা ছাড়া জামায়াতের সাথে যদি সদর আসনটি নিয়ে সমঝোতা হয় তাহলে কে হবেন প্রার্থী হারুনুর রশীদ ? নূরুল ইসলাম বুলবুল ? না কী আব্দুল ওয়াহেদ তানিয়েও ভেতরে দর কষাকষি চলছে বলে জানা গেছে। অপর দিকে শিবগঞ্জে কে পাবের ধানের শীষ ? তা জানতে প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে-এমনটাই দলটির নেতা-কর্মীরা বলছেন।