দাম কমছে যেসব পণ্যের

15

২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে কিছু পণ্যের ওপর শুল্ককর প্রত্যাহারের প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে দেশের বাজারে এসব পণ্যের দাম কমতে পারে।
দেশে উৎপাদিত আইটিপণ্য : দেশে উৎপাদিত আইটিপণ্যে বর্তমানে শুল্ক দিতে হয় ৫ শতাংশ। তবে স্থানীয় শিল্পের বিকাশে এবার এ শিল্পখাতে আরো শুল্ক প্রত্যাহারের প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে দেশে উৎপাদিত ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, প্রিন্টারসহ সব ধরনের আইটিপণ্যের দাম কমতে পারে।
কৃষি যন্ত্রপাতি-সরঞ্জাম : কৃষিতে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে দেশীয়ভাবে বিভিন্ন কৃষি যন্ত্রপাতি উৎপাদনে পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। ফলে দেশে কৃষি যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জামের উৎপাদনে শুল্ককর প্রত্যাহারের প্রস্তাব করা হয়েছে বাজেটে। এতে দেশীয়ভাবে উৎপাদিত কৃষি যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জামের দাম কমতে পারে।
স্বর্ণালঙ্কার : জুয়েলারি শিল্পের প্রসারে স্বর্ণ আমদানিতে অগ্রিম কর প্রত্যাহার করা হয়েছে। ফলে দেশের বাজারে স্বর্ণালঙ্কারের দাম আগের তুলনায় কমতে পারে।
হুইল চেয়ার : প্রস্তাবিত বাজেটে বিশেষায়িত হুইল চেয়ারের আমদানিতে সব ধরনের শুল্ক বিলোপ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। অর্থাৎ হুইল চেয়ার আমদানিতে কোনো শুল্ক থাকবে না। ফলে শারীরিকভাবে অক্ষম ব্যক্তিদের ব্যবহৃত বিশেষায়িত হুইল চেয়ারের দাম কমবে।
মুড়ি ও চিনি : প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যবসায়ীপর্যায়ে মুড়ি ও চিনির ওপর ভ্যাট অব্যাহতির প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে বাজারে এ দুটি পণ্যের দাম কমতে পারে।
কাজু ও পেস্তা বাদাম : আমদানি করা কাজু ও পেস্তা বাদামের ওপর শুল্ককর প্রত্যাহারের প্রস্তাব করা হয়েছে বাজেটে। ফলে দেশের বাজারে আমদানি করা কাজু বাদাম ও পেস্তা বাদামের দাম কমতে পারে।
দেশে উৎপাদিত মোবাইল : স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত মোবাইল হ্যান্ডসেট উৎপাদক প্রতিষ্ঠান বড় ধরনের শুল্ক ও ভ্যাট সুবিধা ভোগ করে আসছে। যেখানে আমদানি করা হ্যান্ডসেটের ওপর ৫৮ শতাংশ শুল্ককর প্রযোজ্য। ফলে স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত ও অ্যাসেম্বলড (সংযোজিত) হ্যান্ডসেটের জন্য কর দিতে হয় যথাক্রমে ১৩ ও ১৮ শতাংশ। প্রস্তাবিত বাজেটে এ সুবিধা অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে সরকার। ফলে আমদানি কর মোবাইলের তুলনায় তুলনামূলক কম দামে ফিচার ফোন (বাটন মোবাইল) মিলতে পারে।
ব্রেইল মুদ্রণ ও কানে শোনার যন্ত্র : বাজেটে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের পড়ার উপকরণ ব্রেইল মুদ্রণের ওপর ভ্যাট অব্যাহতির প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। অন্যদিকে শ্রবণপ্রতিবন্ধীদের জন্য কানে শোনার যন্ত্র ও এ যন্ত্রে ব্যবহৃত ব্যাটারি আমদানিতে শুল্ককর ২৫ শতাংশ কমিয়ে ৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে ব্রেইল মুদ্রণ ও কানে কম শোনার যন্ত্রের দাম কমতে পারে।
মেডিটেশন পণ্য : প্রস্তাবিত বাজেটে মেডিটেশন সেবার ওপর বিদ্যমান কর প্রত্যাহারের প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে এ সম্পর্কিত সব ধরনের পণ্য ও সেবার দাম কমবে।
দেশে তৈরি গাড়ি : ভ্যাট অব্যাহতির সুবিধা পাচ্ছে দেশীয় গাড়ি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো। মোটরগাড়ি তৈরিতে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জামের আমদানিতে শুল্ক ছাড়ের পাশাপাশি ৫ শতাংশ ভ্যাট অব্যাহতি প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে দেশে তৈরি গাড়ি তুলনামূলক কম দামে মিলবে।
আয়রন শিট স্টিলজাতপণ্য : প্রস্তাবিত বাজেটে গ্যালভানাইজড আয়রন ও স্টিলজাতপণ্য উৎপাদনে ব্যবহৃত এইচ আর কয়েল এবং জিঙ্ক-জাতীয় কাঁচামাল আমদানির ক্ষেত্রে করহার ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৩ শতাংশ করার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। ফলে স্টিলজাত সব ধরনের পণ্যের দাম কমবে।
স্টার্টআপ উদ্যোক্তাদের ব্যয় কমবে : প্রস্তাবিত বাজেটে স্টার্টআপ উদ্যোক্তাদের ব্যয় সংক্রান্ত বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করা হয়েছে। একই সঙ্গে টার্নওভার কর শূন্য দশমিক ৬০ শতাংশের পরিবর্তে শূন্য দশমিক ১ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে স্টার্টআপ উদ্যোক্তাদের দেয়া আইটি সেবায় ব্যয় কমবে।
পলিথিন-প্লাস্টিক ব্যাগ : সব ধরনের পলিথিন ও প্লাস্টিক ব্যাগ (ওভেন প্লাস্টিক ব্যাগসহ) এবং মোড়কীকরণ পণ্যের ওপর কর অব্যাহতির প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে দেশের বাজারে এসব পণ্যের দাম কমবে।
পানির ফিল্টার : প্রস্তাবিত বাজেটে পানির ফিল্টারের ওপর শুল্ককর প্রত্যাহার করা হয়েছে। ফলে পানির ফিল্টারের দাম কমতে পারে। এছাড়া বিমানের জন্য ব্যবহৃত টায়ারের দামও কমবে।