দলের পারফরম্যান্সে মুগ্ধ রোনালদো

7

একটি চোখধাঁধানো গোল নিজের, আরেকটি গোলে সহায়তা। টটেনহ্যাম হটস্পারের বিপক্ষে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর নিজের পারফরম্যান্স দারুণ। তবে তিনি মুগ্ধ দলের পারফরম্যান্সে। আগের ম্যাচে লিভারপুলের কাছে উড়ে যাওয়ার পর যেভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে দল, তাতে উচ্ছ্বসিত ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পর্তুগিজ তারকা। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে শনিবার টটেনহ্যামকে ৩-০ গোলে হারায় ইউনাইটেড। গোলের সূচনা করেন রোনালদো। ৩৯ মিনিটে দুরূহ কোণ থেকে দুর্দান্ত ভলিতে জালে জড়ান বল। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে দারুণ গতিময় শটে আরেকবার বল জালে পাঠান রোনালদো।

তবে তখন তিনি ছিলেন অফ সাইডে। পরে তার পাস থেকেই গোল করে দলকে এগিয়ে দেন এদিনসন কাভানি। শেষ দিকে আরেকটি গোল করেন মার্কাস র‌্যাশফোর্ড। এমন দারুণ জয়ের আগে দল ছিল অনেকটা টালমাটাল। আগের ম্যাচে লিভারপুলের কাছে ৫-০ গোলে উড়ে যায় তারা। এটির আগের ম্যাচে লেস্টার সিটির কাছে হারতে হয় ৪-২ গোলে। তাতে কোচ উলে গুনার সুলশারের অবস্থানই নড়বড়ে হয়ে পড়ে। রোনালদোও লিগে চার ম্যাচে পাননি গোল। অবশেষে সবকিছু পেছনে ফেলল তারা টটেনহ্যামের বিপক্ষে এই জয় দিয়ে। জয়ের পর স্কাই স্পোর্টসকে রোনালদো বললেন, দুঃসময়টা পেছনে ফেলার বিশ্বাস তাদের ছিল। “অপ্রত্যাশিত ফলাফলের পর আমরা জানতাম যে কঠিন একটি সপ্তাহ আমাদের পেরোতে হয়েছে।

দল একটু চাপে ছিল, কিছুটা হতাশ ছিল। তবে আমরা জানতাম, জবাব দিতে পারি আমরা।” “আমরা ভালো খেলেছি, ভালো শুরু করেছি। আমার কাজ অবশ্যই অভিজ্ঞতা দিয়ে, গোল করে, গোল বানিয়ে দিয়ে দলকে সহায়তা করা এবং তা পেরেছি, তাতে আমি সন্তুষ্ট। দলের দিক থেকে এই পারফরম্যান্স ছিল অবিশ্বাস্য।” এই জয়ের আগে মাঠের বাজে পারফরম্যান্সের সঙ্গে যোগ হয়েছিল মাঠের বাইরের চাপ। সমালোচনা ধেয়ে এসেছে বানের জলের মতো। তবে দেড় যুগের অভিজ্ঞতায় সমৃদ্ধ রোনালদো এসবে বিচলিত ছিলেন না বলেই দাবি করলেন। “সমালোচনা সবসময়ই থাকবে।

এসব আমাকে ভাবায় না, কারণ ১৮ বছর ধরে ফুটবল খেলছি, কাজেই জানি, লোকে একদিন বলবে, ‘আমরা নিখুঁত’, আরেকদিন বলবে, ‘আমরা কিছুই পারি না।’ এসব থাকবেই।” “আমি জানি যে, এসবের মোকাবেলা করতে হবে আমাদেরই। তবে লোকে যখন প্রশংসা করে ও পাশে থাকে, তা সবসময়ই দারুণ। জীবনটাই আসলে এমন, কখনও কখনও আমাদের খারাপ সময়ের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। আমাদেরই তা বদলাতে হয় এবং তা পেরেছি।”