দলের এমন পারফরম্যান্সেও হতাশ নন ইউভেন্তুস কোচ

4

মৌসুমের শুরুটা চরম বাজে করার পর ইউভেন্তুস কিছুটা যে ছন্দে ফিরেছে, তা বলাই যায়। লিগে আড়াই মাসের বেশি সময় ধরে অপরাজিত রয়েছে তারা। তবে তোরিনোর বিপক্ষে সবশেষ ম্যাচে তাদের পারফরম্যান্স মোটেও আশানুরূপ ছিল না। আক্রমণে ছিল না ধার। ইউভেন্তুস কোচ মাস্সিমিলিয়ানো আল্লেগ্রির কণ্ঠে অবশ্য তেমন কোনো হতাশার ছোঁয়া নেই। অপরাজেয় পথচলা ধরে রাখতে পেরেই যেন খুশি তিনি। ম্যাচ শেষে আল্লেগ্রির কথায়ও তাই ফুটে উঠল। ‘ইতিবাচক ধারা’ বজায় রাখতে পেরেই তিনি স্বস্তি অনুভব করছেন। আলিয়াঞ্জ স্টেডিয়ামে শুক্রবার সেরি আর ম্যাচে মাটাইস ডি লিখটের গোলে প্রথমার্ধে এগিয়ে যায় ইউভেন্তুস। দ্বিতীয়ার্ধে আন্দ্রেয়া বেলোত্তি সমতা টানার পর ওই ১-১ স্কোরলাইনেই শেষ হয় ম্যাচ।

তোরিনো সমতায় ফেরার পর উল্লেখযোগ্য আর কোনো আক্রমণই করতে পারেনি ইউভেন্তুস। দ্বিতীয়ার্ধে লক্ষ্যে শটই রাখতে পারেনি তারা। ম্যাচের পর ডিএজেডএনকে আল্লেগ্রি বলেন, পয়েন্ট হারালেও ম্যাচের ফলাফল ও নিজেদের পারফরম্যান্সে তিনি খুশি। “ম্যাচের ফলটা গুরুত্বপূর্ণ। কারণ (একটি) পয়েন্ট পাওয়ার মধ্য দিয়ে আমরা গত দুই থেকে তিন মাসে যে ইতিবাচক ফলাফল পেয়েছি তা ধরে রেখেছি। লড়াইটা সহজ ছিল না, আমরা তোরিনোর তুলনায় ভালো খেলতে পারিনি, কিন্তু আমরা একটি ভালো ম্যাচ খেলেছি।” “আমরা যখন ভালো খেলছিলাম তখনই গোল হজম করেছি।

প্রথমার্ধে এমন দুটি বা তিনটি পরিস্থিতি ছিল যখন আমরা গোল করতে পারতাম, কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে তেমন কোনো মুহুর্তই আসেনি।” পুরো একটা অর্ধে দলের এমন হতশ্রী পারফরম্যান্সের পরও ছেলেদের শেষ পর্যন্ত লড়ে যাওয়ার মানসিকতা মনে ধরেছে আল্লেগ্রির। তাই এখান থেকে এগিয়ে চলার পথে অনুপ্রেরণা খুঁজে পাচ্ছেন এই ইটালিয়ান কোচ। “দ্বিতীয়ার্ধে আমরা ভালো ফুটবল খেলতে পারিনি। কিন্তু আমি মনে করি এটি স্বাভাবিক পথচলা, লিগে খেললে এমনটা (মাঝেমধ্যে) স্বাভাবিক ঘটনা। বিশেষ করে লক্ষ্য শীর্ষ চারে থাকা হলে একটি ড্রকেও বাদ দেওয়া যায় না।” এই ড্রয়ে লিগে ২৬ ম্যাচে ১৩ জয় ও আট ড্রয়ে ৪৭ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছে ইউভেন্তুস। তাদের চেয়ে ৩ পয়েন্ট কম নিয়ে পাঁচ নম্বরে আতালান্তা, তবে দুটি ম্যাচ কম খেলেছে তারা। ২৫ ম্যাচে ৫৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে এসি মিলান। ২৪ ম্যাচে ৫৪ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে ইন্টার মিলান। ২৫ ম্যাচে ৫৩ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে নাপোলি।