তিন ব্যবসায়ীকে অপহরণের পর হত্যা, জননিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে

71

gourbangla logoআমরা চরম বৈরী পরিবেশের মধ্যে দিনযাপন করছি। যে সমাজে বাস করছি সে সমাজ আমাদের নিরাপত্তা দিতে পারছে না, এমনকি যে রাষ্ট্রে বাস করছি সে রাষ্ট্রও নিরাপত্তাদানে অপারগ। মানুষ আজ অবলীলায় গুম হয়ে যাচ্ছে, অপহৃত হওয়ার পর খুন হচ্ছে, ঘাটেপথে মারা যাচ্ছে। সামাজিক নিরাপত্তা আজ ভূ-লুণ্ঠিত।

এক প্রতিবেদনে প্রকাশ, অপহরণের দুদিন পর বান্দরবানের থানছি উপজেলার ডিমপাহাড় এলাকা থেকে আলীকদমের তিন ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে থানছি আলীকদম সড়কের অংথন পাড়ার কাছে ২৮ কিলোমিটার এলাকা থেকে লাশ তিনটি উদ্ধার করা হয়। থানছি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম জানান, অপহৃতদের গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। অজ্ঞাত সূত্রে খবর পাওয়ার পর থানছি আলীকদম সড়কের ২৮ কিলোমিটার এলাকার জঙ্গল থেকে লাশ তিনটি উদ্ধার করা হয়েছে। গত শনিবার আলীকদম উপজেলার ওবায়দুল হাকিম পাড়ার তিন ব্যবসায়ী মো. আবু বক্কর (৪০), মো. আবসার আলী (৩৫) ও সাহাবুদ্দিন (৩২) মোটরসাইকেলে করে থানছি উপজেলার দুর্গম ডিম পাহাড় এলাকায় গেলে সেখানে একদল সন্ত্রাসী তাদের অপহরণ করে। পরে তাদের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। নগদ আড়াই লাখ টাকা নিয়ে গরু কিনতে তারা ডিম এলাকায় গিয়েছিল। একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে আইনের শাসন থাকবে না, জননিরাপত্তাও পদে পদে বিঘিœত হবে, দিন-দুপুরে মানুষকে অপহরণ করা হবে, তারপর তারা হত্যার শিকার হবে, এটা কোনোভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়।
এখানে বিশেষভাবে উল্লেখ্য, ১২ বছরে সারাদেশে অপহরণ মামলা হয়েছে ২৭ হাজার ৮০। এর মধ্যে ঢাকায় রয়েছে ১ হাজার ৯৬৯টি মামলা। ঢাকার আদালতগুলোয় বিচারাধীন ২ হাজার ৩৭৯ অপহরণ মামলার মধ্যে ১২ বছরের বেশি সময় ধরে চলা মামলার সংখ্যা অন্তত ৬১২। বিচারকাজ যথাসময় সম্পন্ন না হওয়ায় অপহরণকারীদের শাস্তি নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। ফলে অপহরণ, হত্যা, গুম, চাঁদাবাজিসহ অন্যান্য ফৌজদারি অপরাধ বেড়েই চলেছে।
দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত করতে হলে অপরাধ অনিয়ম কেন্দ্রিক গতানুগতিক বৃত্ত থেকে বেরিয়ে এসে অপরাধ প্রতিরোধে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। এর জন্য প্রয়োজন ন্যায়ানুগ ও জ্ঞানভিত্তিক পরিবার, সমাজ তথা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা। সর্বত্র সততা ও আদর্শের জাগরণ ঘটানো।
একুশ শতকে এসে এমনিতেই মানুষের জীবনযাপন কঠিন হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে নাগরিক জীবন বড়ই দুঃসহ ও সংগ্রামশীল। চাঁদাবাজ-ছিনতাইকারী অজ্ঞান ও মলম পার্টি এবং সন্ত্রাসীদের রাজধানীব্যাপী দৌরাত্ম্য, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের লাগামহীন গতি, অসহনীয় যানজট, আবাসন ও কর্মসংস্থানের সংকটের পাশাপাশি এখন আবার গুম অপহরণ আতঙ্ক দেশব্যাপী বিরাজ করছে। এর প্রধান কারণ দেশে আইনের শাসন না থাকা এবং রাজনৈতিক নেতৃত্বের দেউলিয়াপনাত্ব ও নানা সময় দেশে রাজনৈতিক সংকট।
মনে রাখতে হবে, গণতন্ত্রের প্রথম ও প্রধান শর্ত হচ্ছে জনগণের স্বার্থ সংরক্ষণ করা এবং জননিরাপত্তা নিশ্চিত করা। বাংলাদেশের মানুষ আর কতকাল নিরাপত্তাহীন থাকবে? জনগণ একদিকে যেমন বেঁচে থাকার জন্য সংগ্রাম করে আজ পরাজিত ও ক্লান্ত, অন্যদিকে তারা যত্রতত্র বেঘোরে প্রাণ দিচ্ছে, তাদের গুম অপহরণ করা হচ্ছে। কেবল তাই নয় অপহরণের পর হত্যা করা হচ্ছে। বাংলাদেশে আজ মানুষের মূল্য সবচেয়ে কম। যদি নাই হতো তবে তাদের জীবন এতো তুচ্ছ কেন। কেনই বা এতো নিরাপত্তাহীন। এ ব্যাপারে আমরা সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ প্রত্যাশা করছি।