ঢাকা মেট্রোকে গুঁড়িয়ে শিরোপা খুলনার

83

07ঢাকা মেট্রোকে গুঁড়িয়ে জাতীয় ক্রিকেট লিগে টানা দ্বিতীয় শিরোপা জিতেছে আবদুর রাজ্জাকের খুলনা। তিন দিনেই তাদের কাছে হেরে দ্বিতীয় স্তরে নেমে গেছে মার্শাল আইয়ুবের মেট্রো। এনামুল হকের পর তুষার ইমরানের শতকে ৫ উইকেটে ৪২৩ রানে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে খুলনা। আল আমিন হোসেনের দারুণ বোলিংয়ে ১১০ রানে গুটিয়ে যাওয়া মেট্রো হারে ৩৯৮ রানে। ৫০৯ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ৩৯ ওভারে গুটিয়ে যায় মার্শালদের দ্বিতীয় ইনিংস।  জাতীয় ক্রিকেট লিগের ষষ্ঠ ও শেষ রাউন্ডে বিশাল লক্ষ্য তাড়ায় দাঁড়াতেই পারেনি মেট্রো। দলের পাঁচ ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কে গেলেও তাদের কেউ নিজের ইনিংস বড় করতে পারেননি। সর্বোচ্চ ২৯ রান আসে অধিনায়ক মার্শালের ব্যাট থেকে। ২০ রানে অপরাজিত থাকেন জাবিদ হোসেন। ৪১ রানে ৬ উইকেট নিয়ে খুলনার সেরা বোলার আল আমিন। অধিনায়ক রাজ্জাক ৩ উইকেট নেন ৪২ রানে। এর আগে ৩ উইকেটে ২৭২ রান নিয়ে খেলা শুরু করে খুলনা। টানা তৃতীয় শতক পাওয়া তুষার ফিরেন ১৩৮ রান করে। তার ১৬৯ বলের ইনিংসটি গড়া ১৪টি চার ও তিনটি ছক্কায়। ৫০ রানে অপরাজিত থাকেন মোহাম্মদ মিঠুন। ৮০ ওভার বল করাতে ৮ বোলার ব্যবহার করেন মার্শাল। তাদের কেউই একটির বেশি উইকেট পাননি।  প্রথম ইনিংসে অর্ধশতক ও দ্বিতীয় ইনিংসে শতক করা এনামুল হক এবং ম্যাচে ৯ উইকেট নেওয়া আল আমিন জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।  ৬ ম্যাচে খুলনার পয়েন্ট ৫৮। সমান ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে সবার নিচে মেট্রো। পাঁচ ম্যাচে ঢাকা ও বরিশালের পয়েন্ট ৩৭ ও ২৯ করে।
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
খুলনা ১ম ইনিংস: ২০৭
ঢাকা ১ম ইনিংস: ৩৬ ওভারে ১২২
খুলনা ২য় ইনিংস: ৮০ ওভারে ৪২৩/৫ ডিক্লে. (মেহেদী ১৫, হাসান ৫৫, এনামুল ১২২, তুষার ১৩৮, মিঠুন ৫০*, জিয়া ১৭, নাহিদুল ১৩*; মেহরাব জুনিয়র ১/৪৫, সানি ১/৫৯, হায়দার ১/৬০, ডলার ১/৬৮)
ঢাকা মেট্রো ২য় ইনিংস: ৩৯ ওভারে ১১০ (শামসুর ১৩, সাদমান ৫, মেহরাব জুনিয়র ১৩, মার্শাল ২৯, আসিফ ০, সৈকত ৪, শরীফউল্লাহ ২, জাবিদ ২০*, ডলার ১৩, হায়দার ০, সানি ৮; আল আমিন ৬/৪১, রাজ্জাক ৩/৪২, আশিক ১/১৬)
ফল: খুলনা ৩৯৮ রানে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ: আল আমিন হোসেন ও এনামুল হক।