দৈনিক গৌড় বাংলা

মঙ্গলবার, ২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৯শে জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

জোড়া রেকর্ড গড়লেন জুঁই

সাইফ পাওয়ারটেক ৩৬তম জাতীয় সাঁতারের প্রথম দিনে ৪টি জাতীয় রেকর্ড হয়েছিল। আর গত রোববার দ্বিতীয় দিনে আরও ২টি রেকর্ড হয়েছে। ২টি রেকর্ডই গড়েছেন বিকেএসপির জুঁই আক্তার। সব মিলিয়ে দুই দিনে সাঁতারে হয়েছে ৬টি রেকর্ড। মিরপুর সৈয়দ নজরুল ইসলাম সুইমিং কমপ্লেক্সে দিনের শুরুতে মেয়েদের ১৫-১৭ বছর বিভাগে ১০০ মিটার ব্রেস্ট স্ট্রোকে রেকর্ড গড়ে সোনা জেতেন জুঁই। তিনি সময় নেন ১:২৫:০৭ সেকেন্ড। আগের রেকর্ড ছিল সাগরখালী সুইমিং ক্লাবের মরিয়ম খাতুনের। তিনি যে রেকর্ড করেন ২০১২ সালে। এরপর বিকেলে ৮০০ মিটার ফ্রি স্টাইলে নতুন রেকর্ড গড়েন জুঁই। তিনি সময় নেন ১১:০৪:৭৮ সেকেন্ড। এর আগে ২০১২ সালে রেকর্ডটি ছিল আনসারের নাজমা খাতুনের, সময় ১১:২০:১৫ সেকেন্ড। কুষ্টিয়ার আমলার সাঁতারু জুঁই আক্তার। পড়াশোনা করছেন বিকেএসপিতে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। বয়সভিত্তিক সাঁতারে ২০১৭ সাল থেকে খেলছেন। জুঁই বলেন, ‘আমি যেভাবে অনুশীলন করেছি, তাতে আত্মবিশ্বাস ছিল ভালো করব। আমার এই পারফরম্যান্সের পেছনে অনেক অবদান বিকেএসপির কোচদের।’ গত ফেব্রুয়ারিতে দিল্লিতে অনুষ্ঠিত বিমসটেক জুনিয়র ওয়াটার স্পোর্টসে খেলতে গিয়ে ভারতের সাঁতারুদের দেখেছেন, বললেন, ‘আমাদের চেয়ে ওরা অনেক বেশি সুযোগ-সুবিধা পায়। আমরা যদি বিদেশে কোচের অধীনে দীর্ঘমেয়াদি অনুশীলন করতে পারি, তাহলে আমাদেরও আন্তর্জাতিক পদক আসবে।’ ২০১৬ সালের পর এসএ গেমসে সাঁতারে কোনো সোনার পদক আসেনি বাংলাদেশে। জুঁইয়ের আশা দেশের সেই আক্ষেপ ঘোচানোর, ‘আমি আরো ভালোভাবে অনুশীলন করতে চাই। টাইমিংয়ে আরো উন্নতি করতে চাই। এসএ গেমসে যেন আমার হাত ধরে বাংলাদেশে আসে সোনার পদক।’ রোববার ডাইভিংয়ে দুটি ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে একটিতে হয়েছে জাতীয় রেকর্ড। ৪৩টি সোনা, ৩০টি রুপা ও ১০টি ব্রোঞ্জ পেয়ে পদকের তালিকার শীর্ষে আছে বিকেএসপি।

About The Author