জেলা ও উপজেলা মৎস্য কার্যালয় ৫৪ পদের মধ্যে ২১ পদ শূন্য

14

চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা ও উপজেলা মৎস্য অফিস এবং মৎস্যচাষিরা মাছ উৎপাদনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার রাখছে। এ জেলায় উৎপাদিত মাছ স্থানীয় বাজারে বিক্রির পাশাপাশি রাজধানী ঢাকাতেও পাঠানো হচ্ছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হলেও কাছাকাছি জায়গায় অবস্থান করছে। তবে জেলা ও উপজেলা মৎস্য অফিসে ১ম, ২য়, ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির রাজস্ব খাতভুক্ত বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পদসহ ২১টি পদে জনবল না থাকায় কিছুটা হলেও ব্যাহত হচ্ছে কার্যক্রম।
জেলা মৎস্য অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলা ও উপজেলা মৎস্য অফিসগুলোয় জনবল থাকার কথা ৫৪ জন। এর মধ্যে ২১টি পদ শূন্য রয়েছে। এই একুশটি পদের মধ্যে জেলা মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপসহকারী পরিচালক থাকার কথা ১ জন, মৎস্য জরিপ কর্মকর্তা ১ জন ও ১ জন উপসহকারী প্রকৌশলী। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ পদ তিনটিতে জনবল নেই। সূত্রটি জানান, এই তিন পদে লোক না থাকায় কাক্সিক্ষত সেবা দিতে কিছুটা হলেও হিমসিম খেতে হচ্ছে। বিশেষ করে জরিপ কর্মকর্তা না থাকায় সঠিক সময়ে সঠিকভাবে জরিপ কাজটি বিঘিœত হচ্ছে।
অন্যদিকে সোনামসজিদ স্থলবন্দরে ফিসারিজ কোয়ারেন্টাইনের কার্যালয়ে দুটি পদের দুটিই শূন্য রয়েছে। এর মধ্যে ফিসারিজ কোয়ারেন্টাইন অফিসার ১ জন ও অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক ১ জন।
এদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলায় সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার দপ্তরে ৬টি পদের মধ্যে ২টি পদ শূন্য রয়েছে। পদ দুটি হচ্ছে মৎস্য সম্প্রসারণ ও মাণ নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা ও সহকারী মৎস্য কর্মকর্তার পদ। শিবগঞ্জ উপজেলা মৎস্য দপ্তরেও এই ২টি পদে জনবল নেই। নাচোল উপজেলা মৎস্য দপ্তরে মৎস্য সম্প্রসারণ ও মান নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা ও সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা ও ক্ষেত্র সহকারী পদে জনবল নেই।
অপরদিকে গোমস্তাপুর উপজেলা মৎস্য দপ্তরে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ও ক্ষেত্র সহকারী পদ দুটি শূন্য রয়েছে। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা না থকায় দৈনন্দিন কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। ভোলাহাট উপজেলায় মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা, সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা ও ক্ষেত্র সহকারী পদ তিনটি শূন্য রয়েছে। আমনুরা মৎস্যবীজ উৎপাদন খামারে হ্যাচারি সহচর ও অফিস সহায়কের পদ দুটি খালি রয়েছে। এছাড়া নাচোল মৎস্যবীজ উৎপাদন খামারে অফিস সহায়কের পদটি শূন্য রয়েছে।
জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মাহবুবুর রহমান বলেনÑ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পদে লোকবল না থাকায় কার্যক্রম কিছুটা বিঘিœত হচ্ছে। তবে আশার কথা এরই মধ্যে এই জেলায় ৯ জনকে পদায়ন করা হয়েছে। তারপরও ২১টি পদ শূন্য রয়েছে। পদগুলোয় লোকবল পাওয়া গেলে আরো ভালোভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে উল্লেখ করে মাহবুবুর রহমান বলেনÑ আমরা চেষ্টা করছি বতর্মান জনবল দিয়েই উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের। তিনি জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় মাছের মোট চাহিদা হচ্ছে ২৪ হাজার ৮৭৬ মেট্রিক টন। এর বিপরীতে উৎপাদন হচ্ছে ২০ হাজার ১ মেট্রিক টন মাছ। রুই কাতলসহ অন্যান্য বড় মাছের পাশাপাশি দেশীয় মাছ চাষের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে বলে তিনি জানান। তিনি আরো জানান, জেলায় মৎস্যচাষি রয়েছেন ৬ হাজার ৫৫৪ জন এবং মৎস্যজীবী ৯ হাজার ৮৬৯ জন। পুকুর রয়েছে ১১ হাজার ৫৪৯টি। এর মধ্যে সরকারি ৩ হাজার ১৬টি এবং বেসরকারি ৮ হাজার ৩৩টি। বিল আছে ৬৩টি, প্লাবনভূমি ৬৯টি এবং নদী আছে ৪টি। তিনি আরো জানান, জেলায় ঘাটতি থাকছে ৪ হাজার ৮৭৫ মেট্রিক টন। জেলায় ইলিশের উৎপাদন হচ্ছে ৪৩ মেট্রিক টন। জেলার মৎস্য খাতকে এগিয়ে নিতে জেলা ও উপজেলা মৎস্য অফিস নিরলস কাজ করছে বলে জানানো হয়।