জাপানের সৈকতে মিলল বিপন্ন প্রজাতির মৃত ৩০ কচ্ছপ

5

জাপানের একটি প্রত্যন্ত দ্বীপের সৈকতে অন্তত ৩০টি বিপন্ন প্রজাতির সবুজ সামুদ্রিক কচ্ছপ মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে। যাদের অধিকাংশের ঘাড়ে ছুরির আঘাত ছিল। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ তথ্য জানায়। কুমেজিনা দ্বীপের স্থানীয় বাসিন্দারা গত বৃহস্পতিবার ভাটার পর এসব কচ্ছপ খুঁজে পান। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম দ্য মাইনিচি জানায়, একজন মাছ ধরার জেলে জাল থেকে কচ্ছপ অপসারণের জন্য তাদের আঘাতের কথা স্বীকার করেছে। পুলিশ নিষ্ঠুর এ কর্মকা-ের তদন্ত করছে। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক জেলে ঘনিষ্ঠ একটি সূত্রকে জানিয়েছে, ‘আমি জাল থেকে কিছু কচ্ছপ অপসারণ করেছি এবং তাদের সাগরে ছেড়ে দিয়েছি। কিন্তু আমি বড় কচ্ছপগুলোকে অপসারণ করতে পারছিলাম না বলে সেগুলোকে ছুরিকাঘাত করতে বাধ্য হয়েছি।’ স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, ঘটনাস্থলে গত সপ্তাহে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে কিনা তা পরিষ্কার নয়।

জাপান সরকার এবং গ্লোবাল কনজারভেশন গ্রুপ সবুজ সামুদ্রিক কচ্ছপকে বিপন্ন প্রজাতির হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছে। কচ্ছপগুলো উদ্ধারের পর দ্বীপের সামুদ্রিক কচ্ছপ জাদুঘরের সামুদ্রিক জীববিজ্ঞানী এবং অন্যান্য কর্মীরা ওই সৈকতে যান। যদিও এ সময় অধিকাংশ কচ্ছপ মারা গেছে। এদের অধিকাংশের ঘাড়ে ছুরির আঘাত ছিল এবং কিছু অঙ্গ কেটে ফেলা হয়েছিল। জাদুঘরের এক কর্মকর্তা স্থানীয় সংবাদমাধ্যম আশাহি শিমবুনকে বলেন, আমি এ ধরনের কিছু এর আগে দেখিনি। চীনের সামরিক মহড়া তাইওয়ানের প্রতি আক্রমণাত্মক অবস্থানের চিহ্ন বিশ্লেষকদের মতে, বছরের শুরু থেকে স্ব-শাসিত তাইওয়ানের কাছে আরও মহড়া চালিয়ে চীন আরও আক্রমণাত্মক সামরিক ভঙ্গি গ্রহণ করেছে। পিপলস লিবারেশন আর্মির চাইনিজ ইস্টার্ন থিয়েটার কমান্ড ৮ জুলাই তাইওয়ানের আশপাশে জল ও আকাশসীমায় বেশ কয়েকটি বড় আকারের যৌথ যুদ্ধ-প্রস্তুতি অনুশীলন করার পরে এই মূল্যায়ন এসেছে।

যদিও মহড়ার বিস্তারিত প্রকাশ করা হয়নি, ইস্টার্ন থিয়েটার কমান্ডের মুখপাত্র শি ই সাংবাদিকদের বলেছেন যে, কমান্ড উচ্চ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে এবং যুদ্ধ প্রস্তুতির জন্য সামরিক প্রশিক্ষণকে শক্তিশালী করেছে। সামরিক এই মহড়া মার্কিন সিনেটর রিক স্কটের তাইওয়ান সফরের সময় হয়েছে। সফরে তিনি দ্বীপটির রাষ্ট্রপতি সাই ইং-ওয়েন ও প্রধানমন্ত্রী সু সেং-চ্যাংসহ প্রধান নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন। এর আগে, এপ্রিল এবং মে মাসে মার্কিন রাজনীতিবিদদের সফরের সময় আরও দুটি মহড়া করে চীন। মে মাসের শেষের দিকে, মার্কিন সিনেটর ট্যামি ডাকওয়ার্থ তাইওয়ানে তিন দিনের সফর করেন এবং দ্বীপের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করার সময় যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেন।

আর এপ্রিলের মাঝামাঝি ছয় মার্কিন আইনপ্রণেতা অঘোষিত সফরে দ্বীপটি পরিদর্শন করেন। চীনা সামরিক বাহিনী এই সফরের নিন্দা করে বলেছে যে, তারা তাইওয়ানকে একটি বিপজ্জনক অবস্থানে রেখেছে। বেইজিং তাইওয়ানের কাছাকাছি নিয়মিত সামরিক মহড়া বাড়িয়েছে, শুধুমাত্র মে মাসে তাইওয়ানের চারপাশে তিনটি বড় আকারের মহড়া পরিচালনা করেছে। গ্লোবাল ইন্টেলিজেন্স কোম্পানি জেনসের প্রধান প্রতিরক্ষা বিশ্লেষক রিদজওয়ান রহমত বলেন, চীনা সামরিক অভিযান শুধু গতিতে বৃদ্ধি পায়নি বরং এর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের সামরিক অস্ত্র ও সম্পদ। তিনি বলেন, চীন শুধুমাত্র তাইওয়ানের দ্বীপকে রক্ষা করার জন্য তার বাহিনীকে প্রস্তুত করছে না, বরং প্রতিদ্বন্দ্বী দ্বীপের কাছে পৌঁছানোর আগেই সম্ভাব্য প্রতিপক্ষকে আক্রমণ করার জন্য প্রস্তুত হচ্ছে।