চ্যাম্পিয়ন্স লিগ : লিওয়ানদোস্কির হ্যাটট্রিকে শেষ ১৬ নিশ্চিত করলো বায়ার্ন

5

রবার্ট লিওয়ানদোস্কির হ্যাটট্রিকে মঙ্গলবার বেনফিকাকে ঘরের মাঠ আলিয়াঁজ এরিনাতে ৫-২ গোলে উড়িয়ে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ১৬ নিশ্চিত করেছে বায়ার্ন মিউনিখ। চ্যাম্য়িন্স লীগে এটি ছিল পোলিশ তারকা লিওয়ানোদোস্কির শততম ম্যাচ। লিওয়ানদোস্কির হ্যাটট্রিকের পাশাপাশি আরো দুই গোল করেছেন সার্জি গ্যানাব্রি ও লেরয় সানে। সফরকারীদের হয়ে সান্তনার দুই গোল দিয়েছেন মোরাতো ও ডারউনি নুনেজ। প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে লিওয়ানদোস্কির একটি পেনাল্টি মিস নাহলে গোলসংখ্যা হয়ত আরো বাড়তে পারতো। প্রায় এক দশক আগে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের হয়ে অভিষেক হওয়া লেভা শততম ম্যাচের মাইলফলক স্পর্শের পাশাপাশি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ৮১তম গোল করলেন।

ম্যাচ শেষে এই পোলিশ তারকা বলেছেন, ‘কখনই চিন্তা করিনি এতগুলো ম্যাচে এতগুলো গোল করতে পারবো। প্রথম ২০ মিনিট আমি খুব একটা বল পাইনি। একজন স্ট্রাইকারের জন্য এই পরিস্থিতিতে ধৈর্য্য ধরে রাখা খুব কঠিন হয়ে যায়। তবে প্রথম গোলের পর সবকিছুই সহজ হয়ে যায়।’ টানা চার ম্যাচে জয়ী হয়ে ইউরোপীয়া সর্বোচ্চ আসরের নক আউট পর্ব নিশ্চিত হয়েছে জার্মান জায়ান্টদের। গ্রুপ পর্বে বাকি রয়েছে আর মাত্র দুই ম্যাচ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা বার্সেলোনার থেকে তারা ৬ পয়েন্টের সুস্পষ্ট ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে। কোভিড-১৯ পজিটিভ হওয়ায় আগের চার ম্যাচে অনুপস্থিত থাকার পর ডাগ আউটে ফিরেছিলেন হুলিয়ান নাগলসম্যান। গত সপ্তাহে জার্মান কাপে মোনচেনগ্ল্যাডবাখের কাছে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত হওয়া প্রসঙ্গ উত্থাপন করে নাগলসম্যান বলেছেন, ‘সব মিলিয়ে এটি আমাদের জন্য অবিশ্বাস্য রকমের একটি ভাল ম্যাচ ছিল।

গত সপ্তাহের তুলনায় যা শতগুন ভাল। শেষ ১৬ নিশ্চিত করে আমরা প্রাথমিক ধাপ পার করেছি। কিন্তু এরপর শুরু হচ্ছে নক আউট পর্ব যেখানে প্রতিটি ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ।’ ম্যাচের শুরুতেই লুকাস ভেরিসিমোর হেডে ম্যানুয়েল নয়্যার পরাস্ত হলে পিছিয়ে পড়েছিল বায়ার্ন। কিন্তু ভিএআর প্রযুক্তিতে বেনফিকা অধিনায়ক পিজ্জিও অফসাইড অবস্থানের কারণে গোলটি বাতিল হয়ে যায়। ২৬ মিনিটে কিংসে কোম্যানের ফ্লোটেড চিপে লিওয়ানদোস্কি গোল করে বায়ার্নকে এগিয়ে দেন। ছয় মিনিট পর রক্ষনভাগের উপর দিয়ে বেঞ্জামিন পাভার্ডের পাসে গ্যানাব্রির ব্যাকহিলে সফরকারী গোলরক্ষক ওডিসিস ভøাকোডিমোস পরাস্ত হলে ব্যবধান দ্বিগুন হয়। বিরতির আগে গ্রিমালডোর ক্রসে মোরাতো বেনফিকার হয়ে এক গোল পরিশোধ করেন।

এবারের মৌসুমে এই প্রথম কোন ম্যাচে গোল হজম করলো বায়ার্ন। ইনজুরি টাইমে লিও গোরেতকার শট ভেরিসিমোর হাতে লাগলে পেনাল্টি উপহার পায় বায়ার্ন। কিন্তু লিওয়ানদোস্কির দূর্বল শট সহজেই রুখে দেন ভøাকোডিমোস। দ্বিতীয়ার্ধের চার মিনিটের মধ্যে সানের ভলিতে ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে যায় বায়ার্ন। ৬১ মিনিটে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন লিওয়ানদোস্কি। ৭২ মিনিটে কাউন্টার এ্যাটাক থেকে নুনেজ দারুন দক্ষতায় বেনফিকার হয়ে আরো একটি গোল পরিশোধ করেন। ম্যাচ শেষের ৬ মিনিট আগে গোলরক্ষক নয়্যারের নিখুঁত লম্বা পাস থেকে হ্যাটট্রিক পূরণ করতে কোন ভুল করেননি লেভা।