চীন-মিয়ানমার সীমান্ত ক্রসিং বিদ্রোহীদের দখলে

1

মিয়ানমারের একটি জাতিগত সংখ্যালঘু সশস্ত্রগোষ্ঠী দেশটির জান্তা বাহিনীর কাছ থেকে চীন-মিয়ানমার সীমান্ত ক্রসিং দখল করে নিয়েছে। নিরাপত্তা সূত্রের বরাতে রোববার দেশটির স্থানীয় গণমাধ্যম এ তথ্য জানিয়েছে। খবর এএফপির। প্রতিবেদনে ফরাসি সংবাদ সংস্থাটি জানিয়েছে, চীন সীমান্তের পাশে অবস্থিত মিয়ানমারের শান প্রদেশের উত্তরাঞ্চলে জান্তা বাহিনী ও বিরোধীদের সংঘাত আগের তুলনায় বেড়েছে।

তিনটি বিদ্রোহী সংগঠন মিলিত হয়ে দেশটির সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়ছে। তাদের আক্রমণ গত অক্টোবর থেকে শুরু হয়ে চলমান রয়েছে এখনও। বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলো সামরিক বাহিনীর বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। পাশাপাশি একটি শহরেরও নিয়ন্ত্রণে রয়েছে তারা। আর এই শহরটিই মিয়ানমার ও চীনের প্রধান বাণিজ্যিক রুট। বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর বরাতে মিয়ানমারের স্থানীয় একটি গণমাধ্যম জানায়, মিয়ানমার ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স আর্মির (এমএনডিএএ) একটি সহযোগী সশস্ত্র সংগঠন কিইন সান কিয়াউত সীমান্ত গেট দখল করেছে।

এ ছাড়া এমএনডিএএ মুসেই ডিস্ট্রিক্টের মংকু এলাকার একটি সীমান্ত বাণিজ্যিক গেট দখল করার কথা জানিয়েছে। সংবাদ মাধ্যমটি বলছে, আরাকান আর্মি (এএ) এবং তায়াং ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মি (টিএনএলএ) সীমান্তের অন্যান্য অংশে অবস্থান নিয়েছে। বিষয়টির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি নিরাপত্তা সূত্র এএফপিকে বলেন, কিইন সান কিয়াউত সীমান্তের বাণিজ্য গেটে এমএনডিএএ নিজেদের পতাকা উত্তোলন করেছে। ফরাসি সংবাদ সংস্থাটি জানিয়েছে, কোভিড অতিমারীর প্রকোপ কমার পর ২০২২ সালে বাণিজ্যিক গেটটি খোলা হয়। আর এই বাণিজ্যিক গেটটি মিয়ানমার ও চীনের প্রধান বাণিজ্যিক রুট। চলতি সপ্তাহের শুরুতে জান্তা সরকারের মুখপাত্র জ মিন তুন দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, কিইন সান কিয়াউত সীমান্ত পাড়ি দেওয়ার জন্য শতাধিক মালবাহী ট্রাক অপেক্ষা করছে।