চীনে সোনার খনিতে ধস, আটকা পড়েছে ১৮ শ্রমিক

6

জাপানে ভারি তুষারাপাতে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। এরইমধ্যে তীব্র ঠান্ডাসহ বিভিন্ন কারণে অন্তত ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন অন্তত ৮০ জন। এ ছাড়া ১০ হাজার পরিবার বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। জাপানের মেটিওরোলজিক্যাল এজেন্সি সতর্ক করে জানিয়েছে, জাপানের উত্তরাঞ্চলে ব্যাপত তুষারঝড় বয়ে যেতে পারে এবং জাপান সাগরের উপকূলে তুষারপাত এতটাই প্রবল হতে পারে যে ৬০ সেন্টিমিটার (প্রায় ২ ফুট) পুরু তুষার জমতে পারে। জাপানের ফায়ার অ্যান্ড ডিজেস্টার ম্যানেজমেন্ট বিভাগ জানিয়েছে, শনিবার বিকেল নাগাদ প্রবল ঠান্ডা এবং তুষার পড়ে থাকার কারণে বিভিন্ন দুর্ঘটনায় অন্তত ৮০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ৩০ জনের আঘাত গুরুতর। বাকিরা হালকা চোট পেয়েছেন। এদিকে, প্রচ- ঠান্ডার মধ্যেই মড়ার ওপর খাড়ার ঘা হিসেবে দেখা দিয়েছে এ তুষারপাত। পরিস্থিতির সবচেয়ে বেশি অবনতি হয়েছে কানাজাওয়া ও সাপ্পোরোতে।

শহর দুটির কোনো কোনো এলাকায় গত শুক্রবার ৬১ সেন্টিমিটার পর্যন্ত পুরু বরফের স্তর রেকর্ড করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে জরুরি সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া দপ্তর। একই সঙ্গে প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হওয়ার পরামর্শও দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। জাপানের মতোই ভয়াবহ পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রেও। দেশটিতে ঠান্ডা এবং তুষারপাতের কারণে সৃষ্ট সড়ক দুর্ঘটনায় অন্তত ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। বিদ্যুৎহীন অবস্থায় রয়েছে দেশটির ১৭ লাখ মানুষ। যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা এই শৈত্যঝড়কে দেশটির ইতিহাসে অন্যতম ভয়াবহ শৈত্যঝড় বলে আখ্যা দিচ্ছেন।