চালের দাম বৃদ্ধিতে দায়ী সরকারের অব্যবস্থাপনা : বিএনপি

46

সরকারের অব্যবস্থাপনায় চালের দাম সীমাহীন পর্যায়ে পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, আজ সাধারণ গরিব মানুষ চাল কিনে খাওয়ার অবস্থায় নেই। চালের দাম বৃদ্ধিতে সরকারের অব্যবস্থাপনাই দায়ী। চালের দাম আকাশছোঁয়া, এমন অবস্থায় খাদ্যমন্ত্রী চাল কেনার নামে সস্ত্রীক মিয়ানমারে আনন্দ ভ্রমণে গেলেন! গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের বাড়িতে দুর্গা পূজার প্রস্তুতি সভায় হামলার প্রতিবাদে গতকাল সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে এসব কথা বলেন তিনি। খাদ্যমন্ত্রীর মিয়ানমার ভ্রমণের সমালোচনা করে নজরুল ইসলাম খান বলেন, মিয়ানমারের সেনা বাহিনী হাজার হাজার মুসলমানকে হত্যা করছে, লাখ লাখ মানুষকে বাধ্য করছে বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে। এমন সময় তিনি সস্ত্রীক মিয়ানমার গেলেন। এই পরিস্থিতিতে তো স্ত্রী নিয়ে যাওয়ার কথা না! মিয়ানমার প্রসঙ্গে সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, মিয়ানমার বারবার বাংলাদেশের আকাশসীমা লঙ্ঘন করছে। সীমান্তে প্রতিদিন মানুষ হত্যা করছে। দেশের ফসল কেটে নিয়ে যাচ্ছে। আপনারা তা রক্ষা করতে পারছেন না। কোনটিই যদি ঠেকানো না যায়, তাহলে জোর করে ক্ষমতায় আসীন থাকার কী প্রয়োজন? শুধুই কি লুটপাট করার জন্য? লুটপাট করার জন্য মানুষ কাউকে ক্ষমতায় দেখতে চায় না। বিএনপির পক্ষ থেকে ত্রাণ সহায়তায় বাধা দেওয়ায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে বিএনপির এই সিনিয়র নেতা আরও বলেন, রোহিঙ্গারা ক্ষুধায় কাতরাচ্ছে আর বিএনপির পক্ষ থেকে ২২ ট্রাক ত্রাণ দিতে দেয়নি সরকার। এদিকে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সামাজিক সংগঠনগুলো রিলিফ বিতরণ করলেও সরকারি একটি দলের নেতাকর্মীদের সেখানে দেখিনি। আর আপনারা (ওবায়দুল কাদের) বড় বড় কথা বলছেন। সরকারের বিরুদ্ধে গণ বিস্ফোরণ হবে জানিয়ে নজরুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশের জনগণকে গণতন্ত্রহীন অবস্থায় রাখা হয়েছে। সাধারণ মানুষকে সরকার, তাদের গু-া বাহিনী ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে গুম খুন ও নির্যাতিত হতে হচ্ছে। মুসলমানরা ইফতার করতে পারে না, হিন্দুরা পূজা করতে পারে না এমনকি বৌদ্ধদের প্রার্থনা করতে bnpবাধা দেওয়া হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে জনগণ পরিত্রাণ চায়। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামছুজ্জামান দুদুর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ, স্থায়ী কমিটির সভাপতি গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লাহ বুলু।