চাঁপাইনবাবগঞ্জে শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে শহরে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

27

চাঁপাইনবাবগঞ্জে শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে শুক্রবার শহরে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়েছে। বর্ণিল এ শোভাযাত্রায় শ্রীকৃষ্ণের সাজে ছোট ছোট শিশুরা অংশ নেয়। ঢাক-ঢোল বাজিয়ে, নেচে-গেয়ে শোভাযাত্রাটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে শেষ হয় হুজরাপুর উত্তরবঙ্গ বৈষ্ণব সংঘ কেন্দ্রীয় মন্দিরে গিয়ে।
এখানে শোভাযাত্রায় সাজ-সজ্জার জন্য অংশ নেয়া মন্দির ও সনাতনী সংগঠনের মধ্যে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। পুরস্কার তুলে জেলা শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উদ্্যাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ।
শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাটি শহরের শিবতলা চরজোতপ্রতাপ শ্রীশ্রী দুর্গামাতা ঠাকুরাণী মন্দির প্রাঙ্গণ থেকে বেলা ১১টায় বের হয়।
এর আগে সকাল ১০টায় শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও। সভাপতিত্ব করেন জেলা শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উদ্্যাপন পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক শ্রী কনকরঞ্জন দাস।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও বলেন, পরেমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণ ধরণীতে মানুষের মধ্যে এসে তাদের দুঃখ, দুর্দশা মোচনে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছিলেন। তিনি ছিলেন এক দেবদূত। তিনি বলেন, আমাদেরও শ্রীকৃষ্ণের পথ অনুসরণ করে মানুষের এবং দেশের কল্যাণে সবসময় কাজ করে যেতে হবে ।
আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেনÑ নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. শংকর কুমার কু-ু, সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাফফর হোসেন, জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি সাংবাদিক ডাবলু কুমার ঘোষ ও সাধারণ সম্পাদক ধনঞ্জয় চ্যাটার্জী, জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি দিলীপ কুমার রায়সহ অন্যরা।
আলোচনা সভা শেষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন অতিথিবৃন্দ।
করোনা মহামারি কাটিয়ে ওঠে স্বাভাবিক পরিস্থিতি বিরাজ করায় দুই বছর পর জন্মাষ্টমীকে ঘিরে জেলাশহরে সনাতন ধর্মালম্বীরা মেতে উঠেছিল মহাউৎসবে।
শুক্রবার বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভার আয়োজন করে জেলা শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উদ্্যাপন পরিষদ।