চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিএনপির পাল্টাপাল্টি সমাবেশ

28

রাষ্ট কাঠামো মেরামতের রূপরেখা এবং ১০ দফার আন্দোলন কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষে চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিএনপির উদ্যোগে পৃথক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা বিএনপির দুই গ্রুপ পৃথক সমাবেশ ডাকলেও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ একটিতে যোগদান করায় অন্যটির নেতাকর্মীরা তীব্র ক্ষোভে ফেটে পড়েন।
দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক রফিকুল ইসলাম টিপু ও সদস্য সচিব রফিকুল ইসলাম গ্রুপ চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের সোনার মোড় এলাকায় জেলা আদর্শ স্কুলের পাশে সমাবেশের আয়োজন করে। সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নেন- বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভুঁইয়া। এসময় উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাহিন শওকত।
সমাবেশে বক্তারা সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থেকে ১০ দফা দাবি বাস্তবায়নের আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।
এদিকে, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম জাকারিয়া জাকা গ্রুপ নবাবগঞ্জ ক্লাব মিলনায়তনে সমাবেশের আয়োজন করে। সকাল থেকে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভুঁইয়ার জন্য অপেক্ষা করেও না আসায় নেতাকর্মীরা তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা কেন্দ্রীয় নেতা শাহিন শওকতকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন।
দুপুরে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম জাকারিয়া অভিযোগ করেন, এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথিকে আসতে বাধা দিয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাহিন শওকত। তিনি বলেন, সংগঠনে বিভেদ সৃষ্টির জন্য শাহিন শওকতকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে অবাঞ্চিত ঘোষণা করেছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। তার এমন কর্মকা-ের বিষয়ে কেন্দ্রে জানানো হবে।
এসময় জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মাওলানা আব্দুল মতিন, গোমস্তাপুর উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক বাইরুল ইসলাম, সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সেন্টু, শিবগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক আশরাফুল হক, ভোলাহাট উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক বাবর আলী বিশ^াসসহ বিএনপির অনেক প্রবীণ নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।
দুই কর্মসূচিতেই প্রধান অতিথি করা হয় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভুঁইয়াকে। সকাল থেকেই দুই পক্ষেই কর্মসূচিকে ঘিরে প্রস্তুতি নেয়।
এদিকে প্রধান অতিথিকে ছাড়ায় নবাবগঞ্জ ক্লাবে আলোচনা সভা চালিয়ে যান জেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম জাকারিয়ার নেতৃত্বে বিএনপির নেতাকর্মীরা। নবাবগঞ্জ ক্লাবের আলোচনা স্থলে জেলা বিএনপির ও থানা বিএনপির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
তবে অতিথিকে সদস্য সচিবের কর্মসূচিতে নিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে জেলা বিএনপির আহ্বায়কের অভিযোগ প্রসঙ্গে রাজশাহী বিভাগের সহ-সম্পাদক শাহিন শওকত বলেন, এটা সত্য নয়। আর এটা বড় কোনো ইস্যু নয়।
কর্মসূচিকে ঘিরে বিএনপির মধ্যে বিভেদ বাড়ল কি না জানতে চাইলে, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভুঁইয়া বলেন, আমি এই জেলার রাস্তাঘাট তেমনভাবে চিনি না। নেতাকর্মীরা আমাকে যেভাবে নিয়ে এসেছে, আমি সেভাবেই একটি সভায় যোগদান করেছি। জেলা বিএনপির ব্যানারে একই প্রোগ্রাম দুই জায়গায় হতে পারে না। একটি পক্ষকে ত্যাগ স্বীকার করতে হতো। আমি গোলাম জাকারিয়ার সাথে এ বিষয়ে কথা বলব। তবে বিএনপিতে কোনো দলীয় কোন্দল নেই বলে জানান তিনি।