চাঁপাইনবাবগঞ্জের তারাপুর ঠুটাপাড়ায় কাঁচা রাস্তার ধারে কার্তিক প্রামানিকের বৃক্ষ রোপণ

114

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী গ্রাম তারাপুর ঠুটাপাড়ায় স্থানীয় জনগণের নিজস্ব অর্থায়নে গত জুন মাসে নির্মিত হয়েছে ৩ কিলোমিটারের বেশি কাঁচা রাস্তা।
গ্রামটির শত শত বিঘা জমিতে ধান, আম, পেয়ারা ও বরইসহ বিভিন্ন ফসল উৎপন্ন হয় এসব জমিতে। কিন্তু আমবাগান ও ফসলি জমির ফসল আনতে ভোগান্তির সীমা ছিল না। এসব ফসল ঘরে আনতে একমাত্র বাহন ছিল গরুগাড়ি। যার ফলে মাঠ থেকে ফসল আনতে ভোগান্তি যেমন ছিল, তেমনি পরিবহন খরচও হতো প্রচুর।
স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন রাস্তাটির কিছুটা অংশে খালের ওপর মাটি তুলে দিলেও বাকি ৩ কিলোমটারের বেশি কাঁচা রাস্তা ওই এলাকার মানুষের দেওয়া চাঁদার টাকায় নির্মাণ করা হয়।
সেই রাস্তার ধারে শনিবার বৃক্ষমানব কার্তিক প্রামানিক গাছের চারা রোপণ করেন।
এ সময় উপস্থিত ওই এলাকার বাসিন্দা ও বৈদ্যনাথপুর সরকারি প্রাইমারি স্কুলের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. জালাল উদ্দীন, স্থানীয় ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন, কৃষক মন্টু আলি, বাবলুসহ অনেকের সাথে কথা বললে তারা জানান, তারাপুর ঠুটাপাড়াসহ আশপাশের মানুষের শত শত বিঘা ফসলি জমি রয়েছে। আগে গরুগাড়ি করে আমসহ অন্যান্য ফসল পরিবহন করতে হতো এবং স্বাভাবিকের চেয়ে তিনগুণ খরচ লাগত। আমচাষিরা ক্ষতির সম্মুখীন হতো। বর্তমানে আমাদের গ্রামবাসীর চাঁদার টাকা ও সহযোগিতায় এ রাস্তাটি নির্মাণের ফলে পাওয়ার টিলারসহ ট্রাকেও ফসল পরিবহন করা হয় এখন।
তবে তারা বন্যা ও বৃষ্টির পানিতে যাতে খালের ধারে রাস্তা ভেঙে না যায় তার জন্য প্রটেকশন ওয়ালসহ ৩টি ছোট কালভার্ট নির্মাণের দাবি জানান।
বৃক্ষমানব কার্তিক প্রামানিক খালের ওপর রাস্তার ধারে গাছ লাগানোর সময় তিনিও রাস্তাটি সংরক্ষণে প্রটেকশন ওয়াল নির্মাণের দাবি জানান।
গাছের চারা রোপণে সহযোগিতা করেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ বন্ধুসভার সদস্যরা।