গোমস্তাপুর উপজেলায় ইউপি নির্বাচন : শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় উৎসবের আমেজ

30

আল-মামুন বিশ্বাস: চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলা গঠিত হয়েছে ৮টি ইউনিয়ন পরিষদ নিয়ে। দ্বিতীয় দফায় আগামী ১১নভেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নির্বাচন। সেহিসেবে প্রচারণার সময় আছে আর মাত্র ৩ দিন। শেষ মুহূর্তে নির্বাচনকে সামনে রেখে চেয়ারম্যান, সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্যরা নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে গণসংযোগ, সভা-সমাবেশ তথা নির্বচানী প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। একগ্রাম থেকে অন্যগ্রামে গিয়ে ভোটারদের সাথে কুশল বিনিময় করছেন এবং নানা রকম প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। ইউনিয়নগুলোয় বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। চায়ের দোকানসহ গল্প আড্ডায় বসে প্রার্থীদের ভোটের হিসাব নিকাশ কষতে শুরু করেছেন কর্মী-সমর্থকরা।
গত নির্বাচনে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের মধ্যে ৬টিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা জয়লাভ করেছিলেন। এবার বিদ্রোহী প্রার্থীদের নিয়ে বিপাকে পড়েছে দলটি। বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সভায় বহিষ্কারের সুপারিশ করা হয়েছে বলে দলীয় ষূত্রে জানান গেছে।
এদিকে বিএনপিপন্থীরা দলীয় প্রতীক ছাড়াই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন। বর্তমান ও সাবেক অনেক নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ৭ টি ইউপিতে ভোটযুদ্ধে চালিয়ে যাচ্ছেন।
অন্যদিকে চৌডালা ইউনিয়নে একজন জামায়াত নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ৮টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যন পদে ২৫ জন, সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ২৭৪ জন (এই ২৭৪ জনের মধ্যে ৩টি ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী না থাকয় তারা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হবেন বলে নির্বাচন অফিস জানিয়েছে।) এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য পদে ১০৬ জন নারী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
ইউনিয়নগুলোয় সরেজমিনে দেখা গেছে, প্রার্থীদের কর্মী সমর্থকরা সমর্থকরা বাড়ি বাড়ি, দোকানপাটসহ রাস্তায় নেমে নিজ প্রার্থীদের পক্ষে স্লোগানে মেতে উঠেছেন। কেউ কেউ ভোটারদের মধ্যে প্রচারপত্র বিতরণ করে ভোট দেওয়ার অনুরোধ করছেন। ভোটারদের আকর্ষণে ব্যস্ত সময় পার করছন প্রার্থীরা। কোলাকুলি আর কুশল বিনিময়সহ মাইকিংয়ের আওয়াজ মোটরসাইকেলের শোডাউন অন্য রকম এক দৃশ্য দেখা যাচ্ছে ইউনিয়নগুলোতে। এদিকে নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ৭ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ৯ জন বিএনপি নেতা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
গোমস্তাপুর ইউনিয়নঃ এ ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ৩১ হাজার ৫শ ৫৭ জন। চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাঁরা হলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন (নৌকা) ও আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ মিঠু (আনারস), স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা প্রভাষক আনোয়ার হোসেন (ঘোড়া) ও অপর বিএনপি নেতা আশরাফ আলীর ছেলে আব্দুল্লাহ আল রায়হান (চশমা)।
চৌডালা ইউনিয়ন : এ ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ২৫ হাজার ৮শ ২২ জন। এখানে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৪ জন। তাঁরা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত সাবেক চেয়ারম্যান আনসারুল হক(নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী গোলাম কিবরিয়া হাবিব (আনারস), ও তাঁর স্ত্রী শামীম আরা বেগম (চশমা)। আরেকজন স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন জামায়াত নেতা নুরে আলম সিদ্দিকী (অটোরিকশা) প্রতীকে।
বোয়ালিয়া ইউনিয়ন: এ ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ২০ হাজার ৯শ ৭ জন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৩ জন। তাঁরা হলেন, আওয়ামী লীগের মনোনীত নতুন মুখ শামিউল আলম (নৌকা), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান লালু (আনারস), স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা সালেহউদ্দিন (মোটরসাইকেল) প্রতীকে।
বাঙ্গাবাড়ী ইউনিয়ন: এ ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ১৯ হাজার ৮শ ৭৭ জন। এখানে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৩ জন। তাঁরা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান সাদেরুল ইসলাম (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী আমিজুল ইসলাম (মোটরসাইকেল) ও বিএনপি নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম (আনারস)।
আলীনগর ইউনিয়ন : এ ইউনিয়ের মোট ভোটার সংখ্যা ১২ হাজার ৫শ ৯৭ জন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৩ জন। তাঁরা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলাম (নৌকা),স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা আবুল কাসেম মুহাম্মদ মাসুম (আনারস) ও সরফরাজ নেওয়াজ সুজন (চশমা)।
রহনপুর ইউনিয়ন : এ ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১৪ হাজার ৬শ ৩৪ জন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৩ জন। তাঁরা হলেন, আওয়ামীলীগের মনোনীত নতুন মুখ তৌফিজুল ইসলাম (নৌকা), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী ওবাইদুর রহমান (চমশা) ও বিএনপি নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী মনিরুজ্জামান সোহরাব (আনারস) প্রতীকে।
রাধানগর ইউনিয়ন : এ ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ২৮ হাজার ৯শ ৯২ জন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ২ জন। তাঁরা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা মতিউর রহমান (আনারস)।
পার্বতীপুর ইউনিয়ন: এ ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ২৭ হাজার ১শ ৬০ জন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৩ জন। তাঁরা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী নজরুল ইসলাম (চশমা) ও বিএনপি নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন ( আনারস)।
নির্বাচন বিষয়ে গোমস্তাপুর অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দিলীপ কুমার দাস জানান, নির্বাচনী এলাকাগুলোতে এখন পর্যন্ত আইন-শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রয়েছে। এজন্য প্রত্যেক ইউনিয়নে থানা পুলিশের একটি করে টিম কাজ করছে। উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রির্টানিং কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম জানান, আচরণ বিধিসহ নির্বাচনের সার্বিক বিষয় দেখাশোনার জন্য নির্বাচন কমিশন ইতোমধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করেছেন। নির্বাচনে দায়িত্ব থাকা কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। তিনি সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সকলের সহযোগিতা চেয়েছেন।