খাদিজাকে সিআরপিতে স্থানান্তর

126

khatijaসিলেটে ছাত্রলীগ নেতার হামলার শিকার খাদিজা বেগম নার্গিসকে চিকিৎসার জন্য সাভারের পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্রে (সিআরপি) নেওয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতাল থেকে সিআরপিতে নেওয়া হয়। এরআগে সকাল ১০টার দিকে স্কয়ার হাসপাতাল থেকে খাদিজাকে ছাড়পত্র দেওয়া হয় বলে তার বাবা মাশুক মিয়া জানান। তিনি বলেন, (স্কয়ার হাসপাতালের) ডাক্তাররা বলেছেন তার বাম হাত ও বাম পায়ের সমস্যার জন্য দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসা প্রয়োজন। এ কারণেই তাকে সিআরপিতে নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। গত ৩ অক্টোবর সিলেটের এমসি কলেজ কেন্দ্রে স্নাতক পরীক্ষা দিয়ে বের হয়ে হামলার শিকার হন সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের স্নাতক (পাস কোর্স) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী খাদিজা। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক বদরুল আলমের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তার মাথার খুলি ভেদে করে মস্তিষ্কও জখম হয়। হামলার দেড় মাসের বেশি সময় পর গত বৃহস্পতিবার খাদিজার সুস্থতার কথা জানা যায় তার ভাই শাহীনের ফেইসবুক পাতা থেকে, যেখানে হাসপাতালের বিছানায় বসা বোনের একটি ছবিও দেওয়া হয়। পরে শনিবার হাসপাতালের নিচ তলায় খাদিজাকে নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসেন তার চিকিৎসক। সিআরপিতে পৌঁছানোর পর খাদিজাকে সেখানকার নিউরোলজিস্ট সাইদ উদ্দিন হেলালের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনিই খাদিজার পরবর্তী চিকিৎসা করবেন। সাইদ উদ্দিন হেলাল বলেন, খাদিজার ডান দিকে ইনজুরি হওয়ায় তার শরীরের বাম অংশ অবশ অনুভব করেন। এটি আমরা চিকিৎসার মাধ্যমে সারিয়ে তোলার চেষ্টা করব। খাদিজা সবে মাত্র হেড ইনজুরি কাটিয়ে এখন তাকে কথাবার্তা কম বলতে হবে। তার পুরোপুরি সেরে উঠতে কতদিন লাগবে তা দুই-এক দিনের মধ্যে ধারণা পাওয়া যাবে। সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত খাদিজা সিআরপির নির্বাহী পরিচালক শফিকুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে থাকবেন বলেও জানান তিনি।