কেনের ৫০তম আন্তর্জাতিক গোলে জার্মানির সঙ্গে ড্র করল ইংল্যান্ড

1

ক্যারিয়ারের ৫০তম আন্তর্জাতিক গোল করে জার্মানির কাছে ইংল্যান্ডকে পরাজয়ের হাত থেকে রক্ষা করলেন হ্যারি কেন। মঙ্গলবার রাতে মিউনিখে অনুষ্ঠিত নেশন্স লিগের ম্যাচে শেষদিকে পেনাল্টি থেকে সমতাসুচক গোল করেন ইংলিশ অধিনায়ক। ফলে ১-১ গোলে ড্র হয় ম্যাচটি। আলিয়াঞ্জ এ্যারেনায় গোল করে স্বাগতিক জার্মানদের এগিয়ে দেন জনস হফম্যান। কিন্তু শেষ বাঁশি বাজার মাত্র দুই মিনিট আগে পেনাল্টি থেকে গোলটি পরিশোধ করেন কেন। স্বাগতিক ডিফেন্ডার নিকো স্লোটারব্যাক বক্সের মধ্যে ইংলিশ অধিনায়ককে বাঁধা দিলে ভিএআর প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে ওই পেনাল্টির নির্দেশ দিয়েছিলেন রেফারি। এই গোলের সুবাদে ইংল্যান্ডের সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতার আসনের আরো কাছে পৌঁছে গেলেন টটেনহ্যাম স্ট্রাইকার।

তার চেয়ে তিন গোল বেশী নিয়ে তালিকার শীর্ষে আছেন ওয়েন রুনি। ববি চার্লটনের ৪৯ গোলকে টপকে এখন এককভাবে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন কেন। খেলা শেষে কেন চ্যানেল ফোরকে বলেন,‘এই অনুভূতি সত্যিই দারুন। শুরুতে আমি একাধিক সুযোগ পেয়েছিলাম। শেষ পর্যন্ত গোল পাওয়াটা ভালো দিক।’ এর আগে তার অসাধারণ একটি আক্রমণ দক্ষতার সঙ্গে রুখে দেন ম্যানুয়েল নয়্যার। এদিকে গত শনিবার বুদাপেস্টে অনুষ্ঠিত গ্রুপ এ৩ এর ম্যাচে হাঙ্গেরির কাছে পরাজিত হয়েছিল গ্যারেথ সাউথগেটের শিষ্যরা। ফলে এখনো তালিকার তলানিতেই পড়ে আছে ইংল্যান্ড। এদিকে গতকালের ম্যাচে বেশ কিছু দিকে শিষ্যদের পারফর্মেন্সে স্বস্তি প্রকাশ করেছেন ইংলিশ কোচ।

তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘জার্মানরা হচ্ছে এই টুর্নামেন্টের মাস্টার, তাই এটি ছিল আমাদের জন্য ভালো পরীক্ষা। বর্তমান দলটি বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল ও ইউরো ২০২০ ফাইনাল খেলেছে। এক পয়েন্টের লড়াইয়েও তারা মানষিক দৃঢ়তা নিয়ে লাড়াইয়ের এক অনন্য দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছে।’ আগামী শনিবার হাঙ্গেরি সফর করতে যাওয়া জার্মানি প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ডের চেয়ে এক পয়েন্ট বেশী নিয়ে তালিকার তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। সেই সঙ্গে গতকালের ড্রয়ে সেপ্টেম্বর থেকে টানা ১১ ম্যাচে অপরাজিত থাকলো কোচ হান্সি ফ্লিকের দল। ফ্লিক বলেন, ‘আমরা আসলেই ভালো একটি ম্যাচ খেলেছি। তবে পারফর্মেন্সের পুরস্কার ঘরে তুলতে পারিনি।’ ম্যাচের প্রথমার্ধে কোন পক্ষ গোল করতে না পারলেও দ্বিতীয়ার্ধে ৫০ মিনিটে হফম্যানের গোলে এগিয়ে যায় জার্মানি। ৮৮ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোলটি পরিশোধ করেন ইংলিশ অধিনায়ক হ্যারি কেন।