কিডনি বাণিজ্য

48

07

ভারতের নয়াদিল্লির খ্যাতনামা বেসরকারি অ্যাপোলো হাসপাতালে চলছে কিডনি বাণিজ্য। এ বাণিজ্যে হাসপাতালের একটি চক্রকে চিহ্নিত করেছে স্থানীয় পুলিশ। এরইমধ্যে চক্রের সদস্য সন্দেহে পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। যাদের মধ্যে দু’জনই অ্যাপোলো হাসপাতালের কর্মকর্তা। পুলিশের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। এ খবরে দিল্লিজুড়ে আলোচনার ঝড় বইছে। সংবাদমাধ্যমে বলা হচ্ছে, ওই চক্রটি হতদরিদ্র মানুষদের বাগে পেয়ে গেলে কিডনি বেচতে বাধ্য করে। এজন্য তারা প্রত্যেককে ধরিয়ে দেয় মাত্র সাড়ে ৭ হাজার ডলার, যা পরে বিপুল অংকের অর্থের বিনিময়ে বিক্রি করা হয়। রমরমা এই অবৈধ কিডনি বাণিজ্য তদন্তে নেমেছে পুলিশের বিশেষ টিম। এই টিম পুরো চক্রটিকেই আটকের পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে তৎপর রয়েছে। তবে, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিজেদের ওপর আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে উল্টো দাবি করছে, তারা নিজেরাই ঘটনার ‘শিকার’। অবশ্য, এই চক্রে জড়িত চিকিৎসকদের ‘পথভ্রষ্ট’ বলেও আখ্যা দিচ্ছে তারা। অ্যাপোলো হাসপাতালের বিবৃতিতে তাদের মুখপাত্র দাবি করেন, প্রতারক চক্রটি ডিউটিরত চিকিৎকদের কিডনি দানের কথা বলে অপকর্ম করিয়েছে। এই চক্রে জড়িতদের প্রত্যেকের বির”দ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিতে পুলিশে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে। দিল্লি ছাড়াও ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে অঙ্গ বাণিজ্যের খবর প্রায়ই সংবাদমাধ্যমে উঠে আসে। সবশেষ অ্যাপোলোর মতো অভিজাত শীর্ষস্থানীয় হাসপাতালের নামের সঙ্গেও এই বাণিজ্যের খবর জড়ালো।