দৈনিক গৌড় বাংলা

শনিবার, ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ
চলতি বছরের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। রবিবার শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী পরীক্ষার এ ফলাফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে হস্তান্তর করেন। পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে পরীক্ষার এ ফল প্রকাশিত হলো।
এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় মোট পাসের হার ৮৩ দশমিক ০৪ শতাংশ। ছাত্র পাসের হার ৮১.৫৭ শতাংশ ও ছাত্রী পাসের হার ৮৪.৪৭ শতাংশ।
এবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় শতকরা ৯২ দশমিক ৩২ শতাংশ পেয়ে যশোর বোর্ড শীর্ষ স্থানে রয়েছে। সর্বনি¤œ সিলেটে ৭৩ দশমিক ৩৫ শতাংশ। চলতি বছর এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় মোট জিপিও-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৮২ হাজার ১২৯ জন। এর মধ্যে ৮৩ হাজার ৩৫৩ জন ছাত্র, ৯৮ হাজার ৭৭৬ জন ছাত্রী। মোট ২৯ হাজার ৮৬১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৩ হাজার ৭৯৯টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।
এবার ৯টি সাধারণ বোর্ড, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের এসএসসি এসএসসি ভোক ও দাখিল ভোক (সকল বোর্ড) পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২০ লাখ ১৩ হাজার ৫৯৭ জন। এর মধ্যে মোট উত্তীর্ণ হয়েছে ১৬ লাখ ৭২ হাজার ১৫৩ জন। অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ছাত্র ছিল ৯ লাখ ৮৮ হাজার ৭৯৪ জন ও ছাত্রী ছিল ১০ লাখ ২৪ হাজার ৮০৩ জন। উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৮ লাখ ৬ হাজার ৫৫৩ জন ছাত্র, ৮ লাখ ৬৫ হাজার ৬০০ ছাত্রী।
এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অংশগ্রহণকারী মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১৬ লাখ ৬ হাজার ৩৯৪ জন। এর মধ্যে ছাত্র ছিল ৭ লাখ ৫৭ হাজার ২১৮ ও ছাত্রী ছিল ৮ লাখ ৪৯ হাজার ১৭৬ জন। মোট উত্তীর্ণ হয়েছে ১৩ লাখ ৪৫ হাজার ৬৭৮ জন। উত্তীর্ণ ছাত্রের সংখ্যা ৬ লাখ ২৩ হাজার ৮৫৩ জন, ছাত্রী উত্তীর্ণ হয়েছে ৭ লাখ ২১ হাজার ৮২৫ জন। ৯টি সাধারণ বোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৮৪৫ জন। মোট ৭৪ হাজার ৬৭৭ জন ছাত্র ও ৮৯ হাজার ১৬৮ জন ছাত্রী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এ সকল বোর্ডের মোট পাসের হার ৮৩ দশমিক ৭৭ শতাংশ।
মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডে মোট ২ লাখ ৮৪ হাজার ৬৬৫ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেছে। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২ লাখ ২৬ হাজার ৭৫৪ জন। মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৭৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪ হাজার ২০৬ জন। এর মধ্যে ৬ হাজার ৭৩৯ জন ছাত্র এবং ৭ হাজার ৪৬৭ জন ছাত্রী।
এসএসসি ভোকেশনাল ও দাখিল ভোকেশনাল (কারিগরি শিক্ষা বোর্ড) মোট অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ২২ হাজার ৫৩৮ জন। এর মধ্যে ছাত্র ছিল ৯২ হাজার ১৬৯ জন ও ছাত্রী ছিল ৩০ হাজার ৩৬৯ জন। মোট ৯৯ হাজার ৭২১ জন পরীক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছে। গড় পাসের হার ৮১.৩৮ শতাংশ। এর মধ্যে ছাত্র ৭৯.১৯ ও ছাত্রী ৮৮.০৩ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৭৮ জন। কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ৯৩৭ জন ছাত্র ও ২ হাজার ১৪১ জন ছাত্রী।
চলতি বছর মোট প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিল ২৯ হাজার ৮৬১টি এবং ২০২৩ সালে মোট প্রতিষ্ঠান ছিল ২৯ হাজার ৭১৪টি। এবছর শতভাগ পাস করা প্রতিষ্ঠান ২ হাজার ৯৬৮টি ও গত বছর ২০২৩ সালে শতভাগ পাস করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৩৫৪টি। গত বছর শূন্য পাস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছিল ৪৮টি ছিল। এ বছর শূন্য পাস শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৫১।
বিদেশ কেন্দ্রের তথ্য অনুসারে, এবার এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী ছিল ৩৪৭ জন। উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থী ২৯৮ জন ও অনুত্তীর্ণ ৪৯ জন পরীক্ষার্থী। শতকরা পাসের হার ৮৫.৮৮ শতাংশ।
উল্লেখ্য, চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়ে শেষ হয় ১২ মার্চ। মোট ২০ লাখ ২৪ হাজার ১৯২ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। সারাদেশের ৩ হাজার ৭০০ কেন্দ্রে ২৯ হাজার ৭৩৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী এ পরীক্ষায় অংশ নেয়।

About The Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *