এশিয়ায় যুক্তরাজ্যের বিনিয়োগ বাড়ানোর পরিকল্পনা

3

জলবায়ু পরিবর্তন ও ডিজিটাল প্রযুক্তিকে লক্ষ্য করে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে এবার বিনিয়োগ বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে যুক্তরাজ্য সরকারের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ইনস্টিটিউশন (সিডিসি)। আফ্রিকায় বড় ধরনের বিনিয়োগ প্রসারিত করার পর দেশটির এবার বিনিয়োগের গন্তব্য হয়ে উঠছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া। লন্ডন ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের সঙ্গে অর্থনৈতিক ও নিরাপত্তাবিষয়ক সহযোগিতা আরও গভীর করার আশা রাখে এবং সিডিসি গ্রুপ তার বিনিয়োগকে ত্বরান্বিত করে এই কৌশলে অবদান রাখার পরিকল্পনা করেছে।

সিডিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) নিক ও’ডোনহো নিক্কেই এশিয়ার সঙ্গে এক সাক্ষাতকারে এ অঞ্চলে বিনিয়োগের ব্যাপারে কথা বলেছেন। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন যে আগামী পাঁচ বছরে, আফ্রিকাতে কম অর্থের পরিবর্তে আরও বেশি বিনিয়োগ করা হবে, একই সঙ্গে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় কার্যক্রম বৃদ্ধি করা হবে, কারণ তাদের কোম্পানি সম্প্রসারিত হচ্ছে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং ক্যারাবিয়ান অঞ্চলকে প্রধান টার্গেট করে সিডিসি গ্রুপ গতবছর এপ্রিলে তাদের ব্রিটিশ ইন্টারন্যাশনাল ইনভেস্টমেন্ট (বিআইআই) নামের পরিবর্তন করেছে এবং চলতি বছর থেকে আগামী পাঁচ বছরের নতুন বিনিয়োগের কৌশলপত্র ঘোষণা করেছে।

ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলকে গুরুত্ব দিয়ে যুক্তরাজ্য সরকার পাবলিক এবং প্রাইভেট সেক্টরের প্রজেক্টে বছরে ৮ বিলিয়ন পাউন্ডস বা ১০ দশমিক ৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করবে ২০২৫ সাল পর্যন্ত। মূলত পরিবেশগত উন্নয়ন ও ডিজিটাইজেশনের ওপর ভিত্তি করে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। নিক ও‘ডোনহো বলেন, সিডিসি গ্রুপ সরকারের এ পদক্ষেপ বাস্তবায়নে কাজ করবে। নিক ও’ডোনহো বলেন, যে উন্নত দেশগুলোতে বিদ্যুতের অতিরিক্ত খরচ এবং মুদ্রাস্ফীতির মতো মাথাব্যথা সত্ত্বেও বিশ্ব কোভিড মহামারির কবল থেকে বেরিয়ে আসছে। তিনি আরও বলেন, উন্নয়নশীল দেশগুলোর সবুজ অর্থনীতিতে রূপান্তরের কারণে অবকাঠামোগত বিনিয়োগের চাহিদা বাড়ছে।