এবিইউ পুরস্কার-২০২১ এর চূড়ান্ত পর্বে রেডিও মহানন্দা

32

এশিয়া-প্যাসিফিক ব্রডকাস্টিং ইউনিয়ন (এবিইউ) পুরস্কার-২০২১ এর ‘অন-এয়ার পার্সোনালিটি’ পুরস্কার ক্যাটাগরিতে প্রতিযোগীদের মধ্য থেকে চূড়ান্ত প্রতিযোগী হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছে রেডিও মহানন্দা। এবিইউ আয়োজিত এই প্রতিযোগিতায় এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের রেডিও অপারেশনে থাকা পাবলিক সার্ভিস ব্রডকাস্টিং, প্রাইভেট ব্রডকাস্টিং এবং কমিউনিটি ব্রডকাস্টিং চ্যানেল / রেডিওগুলো অংশ নিয়েছিল।
চূড়ান্ত প্রতিযোগী হিসেবে চীনের ৩টি, ভিয়েতনামের ১টি এবং বাংলাদেশ থেকে রেডিও মহানন্দাসহ মোট ৫টি রেডিও স্টেশন মনোনয়ন পেয়েছে।
বাংলাদেশ থেকে চূড়ান্ত প্রতিযোগী হিসেবে মনোনয়ন পাওয়ায় রেডিও মহানন্দার কর্মকর্তা ও কর্মীদের আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বাংলাদেশ এনজিওস নেটওয়ার্ক ফর রেডিও অ্যান্ড কমিউনিকেশন (বিএনএনআরসি) এর প্রধান নির্বাহী এএইচ এম বজলুর রহমান। এসময় তিনি বলেন, এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চল থেকে মোট ৩০০টি প্রোগ্রাম অ্যাওয়ার্ডের জন্য তালিকাভুক্ত হয়। সেখান থেকে ১৮ জন বিচারক বিচার বিশ্লেষণ করে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে মোট ৬৩টি প্রোগ্রাম নির্বাচন করেছে। সেখানে ‘অন-এয়ার পার্সোনালিটি’ ক্যাটাগরিতে চূড়ান্ত ৫টি অনুষ্ঠানের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে রেডিও মহানন্দা। এখন এর মধ্য থেকে চূড়ান্ত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। আমি মনে করি এটা আমাদের একটা বড় অর্জন। কারণ একদিকে সরকারি রেডিও-টেলিভিশন, আরেক দিকে কমিউনিটি রেডিও। সেখান থেকে প্রতিযোগিতা করে চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় জায়গা করে নেয়া এটা সত্যি একটি বড় অর্জন। এর জন্য আমি রেডিও মহানন্দার যত কলাকুশলী আছে, ব্রডকাস্টার আছে তাদেরকে আমি আন্তরিক অভিনন্দন জানাই। চাঁপাইনবাবগঞ্জে যারা রেডিও শুনে থাকেন, দেখে থাকেন (ফেসবুকে) তাদের এবং রেডিও মহানন্দার উদ্যোক্তা সংস্থা প্রয়াসকেও ধন্যবাদ জানাই। আশা করি, চূড়ান্ত যে প্রতিযোগিতা হবে সে ফাইনালে আমাদের অনুষ্ঠান চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হবে।
অনুষ্ঠান নির্মাণে যারা সহায়তা করেছেন সবাইকে ধন্যবাদ জানান প্রতিযোগিতায় নির্বাচিত অনুষ্ঠানটির প্রযোজক সোনিয়া শীল। তিনি বলেন, সকলের সহায়তায় একটি ভালো অনুষ্ঠান নির্মাণ করতে পেরেছিলাম। যা প্রতিযোগিতায় চূড়ান্ত পর্বে জায়গা করে নিয়েছে। সে জন্য আমার খুবই ভালো লাগছে।
রেডিও মহানন্দার প্রোগ্রাম আন্তর্জাতিক একটি প্রতিযোগিতায় চূড়ান্ত পর্বে স্থান করে নেয়ায় সবাইকে ধন্যবাদ জানান রেডিও মহানন্দার ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক গোলাম ফারুক মিথুন। তিনি জানান, আজকে আমরা যে সংবাদটা পেলাম, আন্তর্জাতিক একটি প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ থেকে রেডিও মহানন্দার একটি অনুষ্ঠান চূড়ান্ত পর্বে জায়গা করে নিয়েছে। যা আমাকে রেডিও মহানন্দার ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক হিসেবে এতটাই পুলকিত করেছে, যা ভাষায় প্রকাশ করার নয়। সত্যি এটি আমাদের একটি বিরাট বড় অর্জন। এটির সমস্ত কৃতিত্ব যারা এটি নির্মাণে কাজ করেছেন। আমি তাদেরকে অভিনন্দন জানাই, কৃতজ্ঞতা জানাই। রেডিও মহানন্দার এই সাফল্য নিশ্চয় কর্মীদের আরো উজ্জীবিত করবে এবং রেডিও মহানন্দাকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে উৎসাহিত করবে। এটি নিশ্চয় একটি মাইলফলক।
এ বিষয়ে রেডিও মহানন্দার স্টেশন ম্যানেজার আলেয়া ফেরদৌস বলেন, রেডিও মহানন্দা কমিউনিটির উন্নয়নে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাজ করছে। তারই অংশ হিসেবে নারীর প্রতি সহিংসতা, শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ এই বিষয়গুলো তুলে ধরে নির্মাণ করা অনুষ্ঠান পাঠানো হয়েছিল। সেখান থেকে একটি অনুষ্ঠান চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় জায়গা করে নিয়েছে। এটি নিঃসন্দেহে একটি বড় অর্জন। এজন্য রেডিও মহানন্দার সকলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। ভালো কাজ করলে তার যে সম্মান পাওয়া যায় এটি তার একটি উদাহরণ। চূড়ান্তভাবে বিজয়ী হতেই হবে এমন নয়, এতগুলো প্রতিযোগীর মধ্যে থেকে ফাইনাল পর্বে ভালো একটা জায়গায় গিয়েছে, এটায় আমাদের আরো উৎসাহিত করবে।
এদিকে রেডিও মহানন্দার এই সাফল্যে রেডিও মহানন্দার সকল কলাকুশলী, শুভানুধ্যায়ী, পৃষ্ঠপোষক, দাতা, বিজ্ঞাপনদাতা, ব্যবস্থাপনা ও উপদেষ্টা কমিটির সদস্য এবং এর উদ্যেক্তা সংস্থার সকল স্তরের সদস্যদেরকে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন রেডিও মহানন্দার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হাসিব হোসেন।
উল্লেখ্য, আগামী ১৭ নভেম্বর চূড়ান্ত পর্বে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করবে এশিয়া-প্যাসিফিক ব্রডকাস্টিং ইউনিয়ন (এবিইউ)।
কমিউনিটি রেডিও মহানন্দা চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২০১১ সালের ২৮ ডিসেম্বর উদ্বোধন করা হয়। রেডিও মহানন্দার অনুষ্ঠান তৈরিতে শ্রোতাদের পছন্দের অগ্রাধিকার দেয়া হয়, বিশেষ করে স্থানীয় সমস্যা ও সম্ভাবনার ওপর ভিত্তি করে সংবাদ অনুষ্ঠানগুলো সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। তাছাড়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সম্পর্কিত http://www.radiomahananda.fm/ কমিউনিটি রেডিও মহানন্দা, প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির (PMUS) উদ্যেগে প্রতিষ্ঠিত। প্রয়াস দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের অনগ্রসর দরিদ্র মানুষের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলেছে এবং এর কাজের পরিধি ধাপে ধাপে প্রসারিত হচ্ছে। এটি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় শুরু হলেও এর কর্মক্ষেত্র ধীরে ধীরে অন্যান্য জেলায় সম্প্রসারিত হচ্ছে। এর লক্ষ্য হলো দরিদ্র, বঞ্চিত ও অবহেলিত মানুষের কল্যাণ ও উন্নয়ন এবং তাদের উন্নতি ও পরিবর্তনের জন্য একসাথে কাজ করা। স্থানীয় একটি বেসরকারি সংস্থা হিসেবে, প্রয়াস বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার সহযোগিতায় মূলত পিছিয়ে মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, সচেতনতা এবং স্বনির্ভরতার জন্য চলমান সেবা প্রদান করে আসছে।