উ. কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা ব্যর্থ : দ. কোরিয়া

78

02-Koriaউত্তর কোরিয়া গতকাল শুক্রবার সকালে তাদের পূর্ব উপকূলে একটি ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে। তবে পরীক্ষাটি ব্যর্থ হয়েছে বলে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।
উত্তর কোরিয়া কোন্ ধরনের ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। তবে দেশটি এর আগে অপরীক্ষিত মাঝারি পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ‘মাসুদানের’ পরীক্ষা চালিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
উত্তর কোরিয়ার প্রতিষ্ঠাতা নেতা কিম ইল-সুংয়ের জন্মদিনে গতকাল শুক্রবার এ ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালালো পিয়ংইয়ং। কোরীয় উপদ্বীপে বিশেষত উত্তেজনাকর পরিস্থিতির মধ্যেই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করলো দেশটি।
সরকারি সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে দ. কোরিয়ার সংবাদ সংস্থা ইয়োনহ্যাপের খবরে বলা হয়, ক্ষেপণাস্ত্রটি মধ্যম পাল্লার ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র মাসুদান ছিল। এটি বিএম-২৫ নামেও পরিচিত। খবরে বলা হয়, উত্তর কোরিয়া এই প্রথম বারের মত মাসুদানের পরীক্ষা চালিয়েছে এবং দেশটির কাছে কমপক্ষে আরো ৫০ টি এ ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে। উ. কোরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের মাসুদান গ্রামে এ ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ প্যাড তৈরি করায় ওই গ্রামের নামানুসারে এর নামকরণ করা হয়েছে। এ ক্ষেপণাস্ত্র তিন হাজার কিলোমিটার দূরে আঘাত হানতে পারে। এটি প্রশান্ত মহাসাগরীয় গুয়াম দ্বীপে অবস্থিত মার্কিন সেনা ঘাঁটিতে আঘাত হানতে সক্ষম। তবে যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখন্ডে এটি আঘাত হানতে পারবে না। যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, তারা সর্বশেষ উৎক্ষেপণ শণাক্ত করেছে। তবে তারা বিস্তারিত কিছু জানায়নি। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের এক কর্মকর্তা জানান, এ অঞ্চলে আরো উত্তেজনা বৃদ্ধি করে এমন কর্মকান্ড ও বাগাড়ম্বর থেকে বিরত থাকতে উ. কোরিয়াকে আহবান জানানো হচ্ছে। চীনও উ. কোরিয়ার এ কর্মকান্ডের সমালোচনা করেছে। সম্প্রতি উত্তর কোরিয়া পরমাণু বোমার পরীক্ষা চালায় এবং কয়েক দফা ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ে। এ নিয়ে উদ্বেগ সৃি হয়। পরমাণু বোমা ও ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানোর কারণে উত্তর কোরিয়ার ওপর নতুন করে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। এর পর থেকেই দেশটি একের পর এক হুমকি দিয়ে আসছে।