উগ্রবাদ প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে দৃষ্টিনন্দন পার্কে মঞ্চস্থ হলো ‘মুখোশ’

16

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের উদ্যোগে এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পুলিশের সহযোগিতায় জেলার বিভিন্ন স্থানে মঞ্চস্থ হচ্ছে জনসচেতনতামলূক নাটক ‘মুখোশ’। বাংলাদেশ পুলিশের সন্ত্রাস দমন ও আন্তর্জাতিক অপরাধ প্রতিরোধ কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের অর্থায়নে নাটকের মাধ্যমে উগ্রবাদ, সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ ও ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে বক্তব্য তুলে ধরা হচ্ছে। নাচোলের পর রবিবার বিকেলে বারঘরিয়া দৃষ্টিনন্দন পার্কে নাটকটি মঞ্চায়ন করা হয়।
নাটকটিতে দেখানো হচ্ছেÑ কিভাবে, কোন পরিস্থিতিতে ধর্মের ভুল ব্যাখ্যা গ্রহণ করে যুবসমাজ উগ্রবাদের দিকে ধাবিত হয়। উগ্রবাদের উস্কানিদাতা বা জঙ্গি রিক্রুটাররা বিভিন্ন সংগঠনের নাম ধারণ করে কিভাবে সমাজের মানুষদের আকৃষ্ট করে ভুল পথে নিয়ে বিপথগামী করে তোলে। এছাড়াও একজন উগ্রবাদে বিশ্বাসী ব্যক্তির আচরণের মাঝে কি কি পরিবর্তন ঘটে এবং উগ্রবাদে জড়িত হওয়ার ক্ষেত্রে কারা ঝুঁকিতে রয়েছে তা নাটকটিতে ফুটে উঠেছে। ধর্মের আংশিক ব্যাখ্যা বা ভুল ব্যাখ্যার বিপরীতে ধর্মের সঠিক ব্যাখ্যা, আচরণ এবং সমাজে শান্তি শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে করণীয় সম্পর্কে ধারণা দেয়া হয়েছে।
ইন্টার‌্যাকটিভ থিয়েটার (পারস্পারিক যোগাযোগ) ধারণার প্রয়োগ ঘটানো হয়েছে নাটকটিতে। উপস্থিত দর্শকরা নাটকের ঘটনার সাথে সরাসরি যুক্ত হতে পারছেন, প্রদর্শনকালীন গুরুত্বপূর্ণ মতামত প্রদান করে নাটকের গতি বা গল্পের মোড় ঘুরিয়ে দিচ্ছেন। কখনো কখনো দর্শক মঞ্চে উঠে অভিনেতায় পরিণত হচ্ছেন। অভিনেতা ও দর্শকদের মধ্যে যৌথ মিথস্ক্রিয়ার মাধ্যমে নাটকটির ঘটনা এগিয়ে যাচ্ছে যার ফলে দর্শক নিজেকে নাটকের ঘটনার অংশ মনে করছেন। নাটকের মাধ্যমে দর্শক সরাসরি ঘটনায় যুক্ত হতে পারছেন বলে উপস্থিত দর্শকদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া লক্ষ্য করা গেছে।
নাটক শুরুর আগে সাংবাদিকদের এভাবেই ব্রিফ করেন ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ও নাটকটির প্রধান সমন্বয়ক খন্দকার আরাফাত লেলিন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের গবেষক ও সাবেক শিক্ষার্থীরা নাটকটির পরিবেশনায় যুক্ত আছেন। জায়েদ জুলহাসের রচনায় নাটকটির নির্দেশনা দিয়েছেন থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষক ড. আহমেদুল কবির। প্রদর্শনী বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় যুক্ত আছেন আহসান খান।
নাটকটিতে অভিনয় করেনÑ আবে হায়াত সৈকত, অপূর্ব গোমস্তা, রফিকুল ইসলাম সবুজ তালুকদার, মনিরুজ্জামান রিপন, রাগীব নাঈম, দিগার মো. কৌশিক, কামরুন্নাহার মুন্নি, দেবাশীষ কুমার, শুভ্র সরকার, ইভানা মেঘলা।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার পুলিশের সার্বিক সহযোগিতায় ১১ মে থেকে পর্যন্ত নাটকটি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার বিভিন্ন স্থানে প্রদর্শিত হচ্ছে।
গতকাল রবিবার মঞ্চায়নের সময় দর্শক সারিতে বসে নাটকটি উপভোগ করেন জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব আলম খান। এসময় সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাফফর হোসেনসহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।