দৈনিক গৌড় বাংলা

শনিবার, ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

ঈদে আসছে শরিফুল রাজের তিন সিনেমা

ঈদের ছবি নিয়ে চলচ্চিত্র অঙ্গন বেশ সরগরম! সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে ঈদের ছবি নিয়ে এরআগে এতোটা হুলস্থুল দেখা যায়নি। নিকট অতীতে দেখা গেছে, ঈদের সাত দিন আগেও কোন সিনেমা মুক্তি পাবে তা চূড়ান্ত হয়নি! বছর ঘুরতেই সময় পাল্টে গেছে যেন! মূলত গেল বছর ঈদে মুক্তি পাওয়া প্রিয়তমা ও সুড়ঙ্গ হাওয়া বদলের কা-ারি! দুটি ছবি টানা কয়েক মাস সিনেমা হলে ব্যবসা করেছে। দর্শকের মধ্যে ধরে রেখেছে উত্তেজনা! সম্ভবত সে কারণেই সিনেমা মুক্তি দিতে ঈদ উৎসবকে প্রাধান্য দিচ্ছেন নির্মাতা, প্রযোজকরা! যার জেরে আসন্ন ঈদে মুক্তির দৌড়ে প্রায় ১ ডজন ছবি! এড়ড়মষব ঘবংি চ্যানেল আই’র সর্বশেষ খবর ও বিনোদন গুগল নিউজে এক উৎসবে এতো ছবি মুক্তি দেয়া কতোটা যৌক্তিক, এ নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে হচ্ছে আলোচনা সমালোচনা। তবে শেষ পর্যন্ত ঈদে কয়টি ছবি মুক্তি পায় সেটাই দেখার বিষয়। যদিও আলোচনায় ঘুরে ফিরে আসছে রাজকুমার, দেয়ালের দেশ, কাজলরেখা, ওমর, জ্বীনের মতো সিনেমাগুলো! ভালো নির্মাণে শোনা যাচ্ছে ‘পটু’র কথাও।

এরমধ্যে ‘রাজকুমার’ যে দেশব্যাপী প্রেক্ষাগৃহগুলোতে দাপট দেখাবে, সেটা মোটামুটি অনুমেয়! এখন পর্যন্ত প্রচারণাতেও এগিয়ে ‘রাজকুমার’। পোস্টার আর গান প্রকাশ করেই তার প্রমাণ ভালোভাবেই রেখেছেন শাকিববাহিনী। সেই সঙ্গে সিনেমাটি নিয়ে হল মালিকদের আগ্রহের বিষয়টিও লক্ষণীয়। উচ্চমূল্যে সিনেমাটি বুকিং দেয়ার কথাও শোনা যাচ্ছে। এমনকি কোনো কোনো প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির দশ দিন আগেই টিকিট বিক্রি শুরু করার খবরও গণমাধ্যমে এসেছে। শাকিবের ‘রাজকুমার’ বাদ দিলে এবারের ঈদে যে নামটি অবধারিতভাবে এসে যাচ্ছে, সেটি অভিনেতা শরিফুল রাজ। আসন্ন ঈদে প্রথমবারের মতো তিন সিনেমা নিয়ে উপস্থিত হচ্ছেন এই নায়ক। আর তিনটি সিনেমা নিয়েই আছে দর্শকের আগ্রহ! কাজলরেখা, ওমর এবং দেয়ালের দেশ। তিনটি ভিন্ন মেজাজের সিনেমায় রাজকে দেখা যাবে। এরইমধ্যে তিনটি সিনেমার ট্রেলার, টিজার প্রকাশিত হয়েছে। যা পছন্দও করেছেন দর্শক। এরমধ্যে রাজের সিনেমা হিসেবে অনলাইনে ‘দেয়ালের দেশ’ নিয়ে দর্শকের আগ্রহ বেশী দেখা যাচ্ছে। ‘ওমর’ নিয়েও আছে দর্শকের আগ্রহ।

অন্যদিকে ‘কাজলরেখা’ যতোটা না রাজের অভিনয়ের কারণে দর্শক প্রতীক্ষায় আছে, তারচেয়ে বেশী সিনেমাটি ‘মনপুরা’ নির্মাতা গিয়াস উদ্দিন সেলিমের! তবে রাজকে তিনি এই ছবিতে যেভাবে তুলে ধরেছেন, সেটা নিয়ে সাধারণ দর্শকের আছে বিশেষ কৌতূহল। সব মিলিয়ে সিনেভাবুকদের অনেকে মনে করছেন, এই ঈদটি হতে পারে নায়ক শরিফুল রাজের জন্য টার্নিং! পরাণ, হাওয়া দিয়ে দর্শকের দোরগোড়ায় পৌঁছে গেলেও মাঝখানে ব্যক্তিজীবনে সমালোচিত হয়ে কিছুটা তলিয়ে যাচ্ছিলেন এই নায়ক! হাওয়া, পরাণের মতো তুমুল হিট ছবি উপহার দেয়ার পর ক্যারিয়ার আরো যতোটা মসৃণ হওয়ার কথা, সেটা কি হলো? তবে সব উতরে যেতে পারেন আসন্ন ঈদে মুক্তি পাওয়া ছবিগুলো দিয়ে! রাজ কি পারবেন, অভিনয় দিয়ে সবকিছুর জবাব দিতে?

About The Author