ইন্দোনেশিয়ায় শক্তিশালী ভূমিকম্পে কমপক্ষে একজনের প্রাণহানি

13

ইন্দোনেশিয়ার প্রত্যন্ত মালুকু দ্বীপপুঞ্জে বৃহস্পতিবার শক্তিশালী ভূমিকম্পের আঘাতে কমপক্ষে একজন মারা গেছে ও আরেকজন নিখোঁজ রয়েছে। এতে অনেক ঘরবাড়ি ধসে পড়েছে এবং ভূমিধসের সৃষ্টি হয়েছে। রিখটার স্কেলে এর তীব্রতা ছিল ৬.৫। তবে এতে সুনামির কোনো সতর্কতা জারি করা হয়নি। খবর এএফপির।
মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা জানায়, স্থানীয় সময় সকাল ৮টা ৪৬ মিনিটে মালুকু প্রদেশের আমবনের প্রায় ৩৭ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে ভূপৃষ্ঠের ২৯ কিলোমিটার গভীরে ভূমিকম্পটি আঘাত হানে। এতে লোকজন আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে এবং তারা দ্রুত ফাঁকা রাস্তায় চলে যায়। এর আগেও এ অঞ্চলে শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছিল।
স্থানীয় অনুসন্ধান ও উদ্ধার সংস্থার এক কর্মকর্তা জানান, প্রাণ বাঁচাতে উঁচু এলাকার দিকে যাওয়ার চেষ্টা করার সময় মোটরসাইকেল থেকে পড়ে এক ব্যক্তি মারা গেছে। এছাড়া ভূমিধসে মাটি চাপা পড়ায় আরেক ব্যক্তি নিখোঁজ রয়েছে।
আমবন নগরীতে প্রায় চার লাখ লোক বসবাস করে। এ ভূমিকম্পের ঘটনায় নগরীর লোকজনকে রক্ত ও প্রয়োজনীয় কাপড় দিয়ে আহত বাসিন্দাদের সহায়তা করতে দেখা যাচ্ছে।
আমবন থেকে এএফপির এক প্রতিবেদক জানান, ‘আমি আমার পরিবারের সাথে ঘুমিয়ে থাকার সময় হঠাৎ করে ঘরবাড়ি কাঁপতে শুরু করে। ভূমিকম্পটি প্রকৃতপক্ষে অনেক শক্তিশালী ছিল। আমরা দ্রুত আমাদের বাড়ি থেকে বেরিয়ে যাই। প্রতিবেশীদেরও একই অবস্থা ছিল। এতে সকলে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছিল।’ তিনি আরো জানান, প্রথম দফার ভূমিকম্পের পর ওই এলাকায় বারবার ভূমিকম্প অনুভূত হয়।
ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় দুর্যোগ মোকাবেলা সংস্থা জানায়, প্রাথমিক খবরে ভূমিকম্পটি সমুদ্রতীরবর্তী অঞ্চলে আঘাত হানার কথা বলা হলেও পরবর্তীতে বিশেষজ্ঞরা জানান, এটি সমুদ্র উপকূলে আঘাত হানে।
স্থানীয় দুর্যোগ সংস্থার প্রধান ওরাল সেম উইলার সকলকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি এএফপিকে বলেন, সেখানে ভূমিকম্পের ঘটনায় ‘লোকজন আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে এবং কিছু এলাকা থেকে মানুষ সরিয়ে নেয়া শুরু করা হয়েছে। তবে আমরা তাদেরকে বলার চেষ্টা করছি এতে আতঙ্কিত হওয়ার প্রয়োজন নেই কারণ এ ভূমিকম্পে সুনামির কোনো সতর্কতা জারি করা হয়নি।’