ইউপি নির্বাচন শিবগঞ্জ ও ভোলাহাটে আ.লীগ ২ বিএনপি ৭ স্বতন্ত্র ৮ চেয়ারম্যান প্রার্থী জয়ী

125

Capture (Small)

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ ও ভোলাহাট উপজেলার ১৮টি ইউনিয়নের মধ্যে ১৭টির বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। একটি ইউনিয়নের ফলাফল রাত সাড়ে ৩ টায় এ রিপোর্ট লোখা পর্যন্ত ঘোষণা করা হয় নি। ঘোষিত ১৭টি ইউনিয়নের ফলাফলে চেয়ারম্যান পদে আ.লীগ ২ বিএনপি ৭ ও স্বতন্ত্র ৮ প্রার্থী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।
ঘোষিত ফলাফলে শিবগঞ্জ উপজেলার মনকষা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী শিবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মির্জা শাহাদাৎ হোসেন খুররম (নৌকা) প্রাপ্ত ভোট ১৫ হাজার ১৫০ ভোট। দার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির কামাল উদ্দিন (ধানের শীষ) পেয়েছেন ১৩ হাজার ৫৭১ ভোট।
নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নে আশরাফুল হক (ধানের শীষ) ১২ হাজার ৯৮৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোস্তাকুল আলম পিন্টু (নৌকা) পেয়েছেন ১১ হাজার ৮৫২ ভোট। ধাইনগর ইউনিয়নে আকম তাবারিয়া চৌধুরী (নৌকা) ৭ হাজার ৭৬৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী একে আসগর (ধানের শীষ) পেয়েছেন ৭ হাজার ২৩৭ ভোট। মোবারকপুর ইউনিয়নে তৌহিদুর রহমান (ধানের শীষ) ৯ হাজার ৩৩৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কামাল উদ্দিন (নৌকা) পেয়েছেন ৮ হাজার ৬৪২ ভোট। শ্যামপুর ইউনিয়নে খাইরুল ইসলাম (ধানের শীষ) ১২ হাজার ৩৭৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আসাদুজ্জামান ভোদন (নৌকা) পেয়েছেন ৭ হাজার ৬৯৫ ভোট। দাইপুকুরিয়া ইউনিয়নে আতিকুল ইসলাম জুয়েল (ধানের শীষ) ৫ হাজার ১৫৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তহুরুল ইসলাম (আনারস) পেয়েছেন ৪ হাজার ৫৬২ ভোট। ঘোড়াপাখিয়া ইউনিয়নে ইসমাইল হোসেন (ধানের শীষ) প্রতীকে ৩ হাজার ১১২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী নাইমুল হক (আনারস) পেয়েছেন ২ হাজার ৮৯৯ ভোট। ছাত্রাজিতপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী শামসুল হক (ঘোড়া) ৪ হাজার ৩৫৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী তৌফিকুল ইসলাম (আনারস) পেয়েছেন ৩ হাাজর ৪৩৬ ভোট। বিনোদপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী এনামুল হক (আনারস) ১০ হাাজর ৯৬৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রুহুল আমিন (নৌকা) পেয়েছেন ৬ হাজার ৯১৩ ভোট। দুর্লভপুর ইউনিয়নে আব্দুর রাজিব রাজু (চশমা) ৯ হাজার ৩৮৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী গোলাম আজম (মোটরসাইকেল) পেয়েছেন ৮ হাজার ৯৮৩ ভোট। উজিরপুর ইউনিয়নে সত্বন্ত্র প্রার্থী ফয়েজ উদ্দিন(ঘোড়া) ২ হাজার ৪৫৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী দুরুল হোদা (নৌকা) পেয়েছেন ২ হাজার ৩৮৯ ভোট। চককির্তী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোফাখারুল ইসলাম (অটোরিকশা) ৯ হাজার ১৯৪ ভোট পেয়ে নির্বাতি হয়েছেন,তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আনু মিয়া (নৌকা) পেয়েছেন ৭ হাজার ৫৩৪ ভোট। সাহাবাজপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী তোজাম্মেল হক (আনরাস) ১৫ হাজার ৮৭০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের নিজামুল হক রানা (নৌকা) পেয়েছেন ১৪ হাজার ১১৪ ভোট। পাঁকা ইউনিয়নের ফলাফল ঘোষণা করা হয় নি।
অপর দিকে ভোলাহাট উপজেলার ভোলাহাট ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন ইয়াজদানী জোয়াজ (স্বতন্ত্র) প্রাপ্ত ভোট ৫ হাজার ৮৬৪, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আব্দুল খালেক (নৌকা) পেয়েছেন ৪ হাজার ৩৯৫ ভোট। গোহালবাড়ি ইউনিয়নে আব্দুল কাদের (ধানেরশীষ) প্রতীকে ৬ হাজার ৮১৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইয়সিন আলী শাহ (নৌকা) পেয়েছেন ৬ হাজার ৮১ ভোট। দলদলি ইউনিয়নে মাজহারুল ইসলাম পুতুল (ধানেরশীষ) প্রতীকে ১১ হাজার ৪৩৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আনিসুর রহমান (নৌকা) পেয়েছেন ৫ হাজার ৪৩৩ ভোট, জামবাড়িয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোসফিকুল ইসলাম (আনারস) ৪ হাজার ২১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কামরুজ্জামান (ধানেরশীষ) পেয়েছেন ২ হাজার ১৭১ ভোট।
শিবগঞ্জ ও ভোলাহাট নির্বাচনী কন্ট্রোলরুম সুত্রে এই ফলাফল পাওয়া গেছে।