ইউক্রেন যুদ্ধে ৮ দিনে শরণার্থী ১০ লাখ : জাতিসংঘ

7

ইউক্রেন আগ্রাসনের পর দুই সপ্তাহে ১০ লাখ শরণার্থী প্রতিবেশি দেশে আশ্রয় নিয়েছে বলেছে জাতিসংঘ। এই যুদ্ধ ইতোমধ্যে কয়েক লাখ মানুষকে বাস্তুচ্যুত করেছে। টুইটারে প্রকাশ করা এক বিবৃতিতে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাই কমিশনার ফিলিপ্পো গ্রান্ডি ইউক্রেইনের ভেতরে আটকা পড়া লাখো মানুষের কাছে মানবিক সহায়তা পৌঁছানোর জন্য অস্ত্রবিরতির আহ্বান জানিয়েছেন। জাতিসংঘের ধারণা, যুদ্ধের কারণে ইউক্রেইনের ভেতরে এক কোটি ২০ লাখ মানুষ উদ্বাস্তু হয়েছে এবং তাদের ত্রাণ সহায়তা দরকার। এদিকে, ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে দিনের শুরুতেই অন্ততপক্ষে চারটি বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে দুটি বিস্ফোরণ ঘটে শহরের কেন্দ্রস্থলে। বাকি দুটো কিয়েভ মেট্রো স্টেশনের কাছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা বিবিসি।

রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের তদন্ত শুরু করেছে আইসিসি। বিমান ও রকেট হামলায় ধ্বংসস্তুপে পরিনত হয়েছে ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভ। দক্ষিণের শহর খেরসনের সড়কে রাশিয়ান সেনারা উপস্থিত হয়েছে বলে জানায় শহরটির মেয়র। রাতজুড়েই রাজধানী সহ বড় শহরগুলোতে বিমান হামলার সতর্কী সাইরেন চলেছে। ইউক্রেন- রাশিয়ার যুদ্ধ দ্বিতীয় সপ্তাহে প্রবেশ করলো। এদিকে, দ্বিতীয় দফা বৈঠকে বসতে যাচ্ছে ইউক্রেন ও রাশিয়া। অস্ত্রবিরতি নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পোলিশ-বেলারুশ সীমান্তে হবে এই বৈঠক। বৈঠকে ইউক্রেনের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওলেস্কি রেজনিকোভ ও উপ-পররাষ্ট্র মন্ত্রী মিকোলা তোচিৎস্কি। আর রাশিয়ার পক্ষ থেকে ছিলেন উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী আলেক্সান্ডার ফোমিন ও বেলারুশে রুশ রাষ্ট্রদূত বোরিস গ্রিজলোভ।

তাদের নেতৃত্বে ছিলেন প্রেসিডেন্সিয়াল সহকারী ভøাদিমির মেদিনস্কি। মস্কোর প্রধান আলোচক ভøাদিমির মেদিনস্কি জানিয়েছেন, এরইমধ্যে রাজধানী কিয়েভ ছেড়েছেন ইউক্রেনীয় প্রতিনিধিরা। তাদের নিরাপদ করিডর নিশ্চিত করেছেন রুশ সেনারা। এদিকে, প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের প্রধান উপদেষ্টা আলেক্সেই অ্যারেস/তোভিচের বরাতে সংবাদমাধ্যম তাস জানিয়েছে, প্রথম দফা বৈঠকে অংশগ্রহণকারীদের নিয়েই হবে এবারের আলোচনা। রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ বলেন, নিরস্ত্রীকরণে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ মস্কো। ইউক্রেনীয় অঞ্চলে মোতায়েন হবে না এমন অস্ত্রের তালিকা তৈরির ওপরও জোর দেন তিনি। এর আগে, কোনো সুরাহা ছাড়াই সোমবার বেলারুশ সীমান্তে প্রথম দফা বৈঠক শেষ হয়।