ইউক্রেইন থেকে শস্য রপ্তানি বাড়ছে

6

আজভ সাগরে রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে থাকা ইউক্রেইনের বারদিয়ানস্ক বন্দর দিয়ে শস্য পাঠানো শুরু হলে আরও বাড়বে। ইউক্রেইনের দক্ষিণপূর্বের জাপোরিঝঝিয়া অঞ্চলের যে অংশ রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে সেখান থেকে দৈনিক সাত হাজার টনের বেশি শস্য রপ্তানি হচ্ছে। ওই অঞ্চলে রাশিয়ার নিয়োগ দেওয়া প্রশাসনের পক্ষ থেকে শনিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয় বলে খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের। বিবৃতিতে বলা হয়, রাশিয়া নিয়ন্ত্রিত জাপোরিঝঝিয়া থেকে প্রতিদিন রেলওয়ে দিয়ে পাঁচ হাজার টনের বেশি এবং দেড় হাজার থেকে দুই হাজার টন শস্য সড়ক পথে পরিবহন করা হচ্ছে। তবে ওই শস্য কোথায় পাঠানো হচ্ছে সে সম্পর্কে ইয়েভজেনি বালিৎস্কি কিছু জানাননি। জাপোরিঝঝিয়ায় রাশিয়ার নিয়োগ দেওয়া প্রশাসনের প্রধান বালিৎস্কি আরও বলেন, আজভ সাগরে রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে থাকা ইউক্রেইনের বারদিয়ানস্ক বন্দর দিয়ে শিগগিরই শস্য পাঠানো শুরু হলে রপ্তানির পরিমাণ আরও বাড়বে। ‘‘শস্য রপ্তানিজনিত সমস্যার সমাধান হতে চলেছে এবং শিগগির আমরা তুরস্কে শুকনো শস্য পাঠাতে কার্গো বোঝাই করা শুরু করব।

কৃষকরা তাদের শস্য তুরস্ক, সৌদি আরব, মধ্যপ্রাচ্য ও মিশরের বাজারে বিক্রি করতে পারবেন।” রয়টার্স স্বাধীনভাবে তার এই দাবি যাচাই করতে পারেনি। এদিকে ইউক্রেইনের অভিযোগ, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি আগ্রাসন শুরুর পর রুশ বাহিনী তাদের যেসব অঞ্চল দখল করেছে সেখান থেকে রাশিয়া শস্য চুরি করছে। রাশিয়া বিশ্বের শীর্ষ গম রপ্তানিকারক দেশ। এর আগে গত জুলাই মাসে বালিৎস্কি বলেছিলেন, রাশিয়া নিয়ন্ত্রিত জাপোরিঝঝিয়া শস্য বিক্রির বিষয়ে ইরাক, ইরান ও সৌদি আরবের সঙ্গে একটি চুক্তিতে উপনীত হয়েছে। ওই অঞ্চলে এ মৌসুমে ১৫ লাখ টন শস্য উৎপাদিত হয়েছে বলেও শনিবার জানান বালিৎস্কি। তবে আগামী মৌসুমে ফসল উৎপাদনের জন্য সেখানকার কৃষকরা এখনো সার হাতে পায়নি বলেও জানান তিনি।