আর্ন্তজাতিক পাবলিক সার্ভিস দিবস উপলক্ষ্যে র‌্যালি ও আলোচনা সভা

8

টেকসই উন্নয়ন অভিষ্ট (এসডিজি) অর্জনে সবাইকে একসাথে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল হাসান।  শনিবার সকালে আর্ন্তজাতিক পাবলিক সার্ভিস দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় এ আহ্বান জানান তিনি। এ-সময় তিনি বলেন, পাবলিক সার্ভিসের গুরুত্ব অনেক।
জেলা প্রশাসক বলেন-বর্তমানে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনি কর্মসূচির আওতায় প্রচুর পরিমাণ কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে। এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে পাবলিক সার্ভিসে কর্মরতরা। ভাতা ভোগীদেরকে নির্বাচন করে অর্থপ্রদান বা খাদ্য শস্য প্রদান করা হচ্ছে। তিনি বলেন- আমরা যদি দেশের মান উন্নত না করতে পারি এই গর্ভারনেস যদি জনগণ মুখি না হয়, জনগণের কাছে দায়বদ্ধ না হয়, জনগণের প্রতি দায়িত্বশীল না হয়, জনগণের প্রতি সমৃদ্ধিশালী না হয় এবং যেটা তাদের চাহিদা সেটাকে লক্ষ্য রেখে না কাজ করে, তাহলে আমরা কিন্তু এসডি অর্জনে পিছিয়ে থাকব। তাই সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে।
আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব, শিক্ষা ও আইসিটি) আবু হায়াত মো. রহমতুল্লাহ। তিনি সকলের উদ্দেশে বলেন সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল (এসডিজি) ২০১৬ সালে থেকে ২০৩০ সাল পর্যন্ত সারাদেশে কাজ করবে এবং এই ২০৩০ সালের মধ্যে আমাদের সকল কাজ সম্পন্ন করতে হবে। আপনারা যে যেখানে আছেন, যেভাবে আছেন নিজ নিজ অবস্থান থেকে চিন্তা করতে হবে। পাবলিক সার্ভিস কী এবং এর কী কাজ এ বিষয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হুদা বলেন একজন পাবলিক সার্ভিসে কর্মরত কর্মকর্তার দক্ষতা এবং সততা দিয়ে কার্যসম্পাদন করবেন।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সরকার শাখার উপ-পরিচালক য. চিত্র লেখা নাজনীন, সদর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন, জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আনন্দ কুমার অধিকারী, জেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল লতিফ, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এনডিসি নয়ন কুমার রাজবংশীসহ বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি অধিদপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ। এর আগে সকাল সাড়ে ৯ টায় এ উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালি শেষে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।