আর্জেন্টিনা ম্যাচে তাকিয়ে আলিসন

2

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে কলম্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচটি আলিসনের জন্য ছিল বিশেষ উপলক্ষ। ব্রাজিলের জার্সিতে ৫০ ম্যাচ হয়ে গেল এই গোলরক্ষকের। মাইলফলক ছোঁয়ার আনন্দ তার আরও বেড়ে যায় দলের অর্জনে। কলম্বিয়াকে হারিয়ে লাতিন অঞ্চল থেকে প্রথম দল হিসেবে কাতার বিশ্বকাপে সরাসরি জায়গা করে নেয় ব্রাজিল। জোড়া প্রাপ্তির ম্যাচ শেষে তৃপ্ত আলিসন এখন অপেক্ষায় চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ম্যাচের জন্য। সাও পাওলোয় বাংলাদেশ সময় শুক্রবার সকালে বাছাইয়ের ম্যাচটি ১-০ গোলে জিতে নেয় ব্রাজিল। দ্বিতীয়ার্ধে লুকাস পাকেতার গোলে তিন পয়েন্ট নিশ্চিত হয় তিতের দলের। এই জয়ে বাছাইয়ে এখন পর্যন্ত অপরাজিত রইল পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। নিজের মাইলফলকের ম্যাচে দলের লক্ষ্য পূরণ হওয়ায় ম্যাচ শেষে আলিসন ছিলেন উচ্ছ্বসিত। “এটি খুবই সন্তোষজনক (ফলাফল), আমাদের প্রথম লক্ষ্য ছিল (বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করা)।” “আমাদের (বাছাইপর্বে) অভিযান দুর্দান্ত ছিল এবং আমরা আগেভাগেই বিশ্বকাপে জায়গা করে নিয়েছি এবং আমার ৫০তম ম্যাচে এটি করাটা আমার জন্য ছিল বিশেষ কিছু।” বিশ্বকাপে খেলাটা নিশ্চিত করে ফেললেও পরের ম্যাচগুলো হালকাভাবে নিতে নারাজ আলিসন।

প্রতিটি ম্যাচকেই সমান গুরুত্বের সঙ্গে খেলে ধরে রাখতে চান নিজেদের অজেয় যাত্রা।”পরিবর্তনটা ¯্রফে হলো যে আমরা বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে ফেলেছি, কিন্তু বিশ্বকাপের ভাবনায় প্রতিটি খেলার (গুরুত্ব) একই থাকবে।” “এটা একটা মঞ্চ মাত্র। যত আগে বিশ্বকাপ নিশ্চিত করা যায়, তত ভালো। কোচকে আরও ভাল প্রস্তুতি নিতে, সবাইকে খেলানোর সুযোগ করে দেয় এটি। কিন্তু আমরা যা করে আসছি, তাতে বদল আসবে না। পরের ম্যাচটা সবসময়ই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।” পরবর্তী ম্যাচে আগামী ১৭ নভেম্বর ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনা, যাদের কাছে হেরে চলতি বছর কোপা আমেরিকার শিরোপা খুইয়েছে ব্রাজিল। দুঃসহ স্মৃতি ভুলে এই ম্যাচে জয় তুলে নিয়ে সেই ক্ষতে প্রলেপ দিতে চান আলিসন। “আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হওয়াটা সবসময়ই গুরুত্বপূর্ণ এবং বিশেষ কিছু।” “এবং এটা সত্য যে, তারা সবশেষ কোপা আমেরিকার শিরোপা জিতেছে। যদিও আমি মনে করি, জয়টা আমাদের প্রাপ্য ছিল। তবে ফুটবলে একটি দলই বিজয়ী হয়। আমরা কী করতে পারি, এবার তা দেখানোর সুযোগ।” কাতার বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে গত সেপ্টেম্বরে ব্রাজিলের মাঠে মুখোমুখি হয়েছিল দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। তবে সাও পাওলোয় শুরুর পাঁচ মিনিট পরই স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগের হস্তক্ষেপে শেষ পর্যন্ত স্থগিত হয়ে যায় ম্যাচটি। সেটি নিয়ে তদন্ত করছে ফিফা। এবার আর্জেন্টিনার মাঠে হতে যাচ্ছে ফিরতি লেগ। বাছাইয়ে ১২ ম্যাচে ১১ জয় ও এক ড্রয়ে ৩৪ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে ব্রাজিল। ১১ ম্যাচে ২৫ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে আছে আর্জেন্টিনা।